Pages

Categories

Search

আজ- সোমবার ১৯ নভেম্বর ২০১৮

নভেম্বর ১২, ২০১৩
শ্রীপুর
No Comment

SRiPUR--GAZiPUR--11.11.2013--KIDNAP_(6)[1]র‌্যাব পরিচয়ে অপহরণ ঃ গভীর জঙ্গল থেকে অপহৃতকে উদ্ধার ঃ গণপিটুনি দিয়ে  অপহরনকারীদের পুলিশে দিয়েছে জনতা

শ্রীপুর থেকে বশির আহমেদ কাজল ঃ

শ্রীপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান এস এম আব্দুর রউফের ভাগিনা ও শ্রীপুর পৌরসভার টিকাদান সুপারভাইজার আব্দুল মোমেনকে (৩০) র‌্যাব পরিচয়ে অপহরণের তিন ঘন্টা পর হাত পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করেছে এলাকাবাসী। এসময় দৌঁড়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় দুই ভুয়া র‌্যাব সদস্যকে আটক করে গনপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছেস্থানীয়  জনতা। সোমবার দুপুর সোয়া দুইটায় পার্শ্ববর্তী কালিয়াকৈর উপজেলার মধ্যপাড়া ইউনিয়নের গভীর জঙ্গলে এ ঘটনা ঘটে।
গ্রেপ্তারকৃতরা হল- রাজবাড়ী জেলা সদরের বাসচন্দ্রপুর গ্রামের মনসুর আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর আলম খান (৩০) ও কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার চরপলাশবাড়ী গ্রামের মৃত কছিম উদ্দিনের ছেলে ইকবাল আহমেদ (৩৫)। তাদের কাছ থেকে একটি ওয়াকিটকি উদ্ধার করা হয়।
জানা গেছে, শ্রীপুর পৌরসভার টিকাদান সুপারভাইজার আব্দুল মোমেন জানান, বেলা ১১টার দিকে মাওনা থেকে মোটরসাইকেলযোগে শ্রীপুর যাওয়ার পথে শ্রীপুর-মাওনা সড়কের বেপারীবাড়ী (লাল পুকুর পাড়) এলাকায় একটি হায়েস মাইক্রোবাস তাকে চাপা দেয়। মাইক্রোবাসের ভেতর থেকে র‌্যাবের পোশাক পরিহিত ৫ যুবক র‌্যাব পরিচয় দিয়ে তাকে মোটরসাইকেল থেকে জোর করে মাইক্রোবাসে উঠিয়ে নেয়। তারা মাইক্রোবাসে তুলেই তাকে হাতকড়া পড়িয়ে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক দিয়ে গাজীপুরের দিকে রওয়ানা হয়। তাদের সাথে ওয়াকিটকি ও আগ্নেয়াস্ত্র ছিল। শ্রীপুরের মাস্টারবাড়ী এলাকায় পৌঁছলে মাইক্রোবাসটি বিকল হয়ে পড়ে। সেখান থেকে র‌্যাবের পোশাক পরিহিত পাঁচজন তার হাত থেকে হাতকড়া খুলে মাইক্রোবাসের সাথে থেকে যায়। তাদের সহযোগী সাদা পোশাকধারী জাহাঙ্গীর আলম খান ও ইকবাল আহমেদ মোমেনকে নিয়ে একটি সিএনজিচালিত স্কুটারে উঠে। স্কুটারে উঠার পরই তারা মোমেনের মুখ, হাত, পা বেঁধে ফেলে।
সিএনজি চালক শ্রীপুর পৌর এলাকার লোহাগাছ গ্রামের হানিফ জানান, তারা তাকে গাজীপুর সদর উপজেলার হোতাপাড়া হয়ে মির্জাপুরের দিকে যেতে বলে। ওই সড়কের কালিয়াকৈর উপজেলার মধ্যপাড়া ইউনিয়নের গভীর জঙ্গলের ভেতর মোমেনকে মুখ, হাত, পা বাঁধা অবস্থায় ফেলে দেওয়া হয়। এসময় ভুয়া র‌্যব সদস্যরা সিএনজি চালককেও ঘটনাস্থল থেকে চলে যেতে বলে। অল্প দূরে গিয়ে স্কুটার চালক ডাকাত বলে চিৎকার দিলে আশপাশের লোকজন এসে ওই দু’ যুবককে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে মধ্যপাড়া ইউনিয়ন পরিষদে সোপর্দ করে।