Pages

Categories

Search

আজ- বুধবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

সিলেটে জমিয়তের সম্মেলনে জাতীয় নেতৃবৃন্দের ঘোষনা: জালেম সরকার হঠাতে গণ আন্দোলন গড়ে তোলতে হবে

মে ১৩, ২০১৪
জাতীয়, রাজনীতি, সিলেট
No Comment

 

জমিয়তের কেন্দ্রীয় সভাপতি খলিফায়ে মাদানী শায়খুল হাদীস আল্লামা শায়খ আবদুল মোমিন বলেছেন, ইসলামী সমাজ ব্যাবস্থা ছাড়া দেশে শান্তি আসতে পারেনা। এই সরকার ইসলাম বিদ্বেষী, তাই জালেম সরকারের বিরুদ্ধে দেশ ব্যাপী হক্কানী উলামায়ে কেরামের নেতৃত্বে গণ আন্দোলন গড়ে তোলতে হবে। বিভিন্ন সংগঠন থেকে জমিয়তে  উলামায়ে ইসলামে যোগদান কারী শতাধিক আলেম উলামা, ইসলামী নেতৃবৃন্দ এবং জমিয়তের নবনির্বাচিত ৩ জন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের সম্মানে আয়োজিত  সংর্বধনা অনুষ্টানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
সোমবার দরগাহ গেইটস্থ শহীদ সুলেমান হলে  সিলেট জেলা ও মহানগর জমিয়তের যৌথ উদ্দোগে উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা জমিয়তের সভাপতি মাওলানা শায়খ জিয়া উদ্দীন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, হেফাজতে ইসলাম ঢাকা মহানগরীর আহবায়ক ও জমিয়তের কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহসভাপতি আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমী,জমিয়তে উলামাযে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি মাওলানা হোসাইন আহমদ বারকুটি, শায়খুল হাদীস আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী, বর্তমান ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক, মাওলানা আব্দুল মান্নান শায়খে দরইরগাও । সংর্বধিত অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের সাবেক কেন্দ্রীয় সিনিয়র নায়বে আমির মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফি,  বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় যুগ্মমহাসচিব আর্ন্তজাতিক বক্তা মাওলানা  তাফাজ্জুল হক আজিজ,  বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় যুগ্মমহাসচিব মাওলানা মোহাদুল্লাহ জামী, মাওলানা ফজলুল করিম কাসেমী, মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম জামি,মাওলানা আব্দুল্লাহ আল হাসান, মাওলানা ফেরদৌস ,  সিলেট মহানগর শাখার সাবেক সভাপতি মাওলানা খলিলুর রহমান, সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি মাওলানা ক্বারী আব্দুল মতিন,সিলেট জেলার সহসভাপতি মাওলানা খায়রুল ইসলাম, সিলেট জেলার সহসভাপতি হাফিজ সৈয়দ শামিম আহমদ, সিলেট জেলার সহসেক্রেটারী মাওলানা জয়নুল আবেদীন , মাওলানা মুজিবুর রহমান, মাওলানা উসমান গণী, মাওলানা শফীকুল ইসলাম, মাওলানা কামাল হোসাইন, মাওলানা মুফতী ইলিযাস আহমদ, মাওলানা মাছুমুর রহমান, হাফিজ ইকরামুল আজীজসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগত প্রায় অর্ধশত জমিয়তে যোগদান কারী  অতিথিদেরকে ক্রেস্ট দিয়ে বরণ করে নেন মহানগর ও  জেলা জমিয়ত নেতৃবৃন্দ।  শ্বাগত বক্তব্য মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরী।
মাওলানা আব্দুল মালিক চৌধুরী, মাওলানা নজরুল ইসলাম, মাওলানা আলী নুর, মাওলানা সাইফুর রহমান, মাওলানা মোহাম্মদ আলীর যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন, মাওলানা ফয়জুল হাসান খাদিমানী, যুব জমিয়তের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা জিয়াউল হক কাসেমী,দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান, বিয়ানী বাজার উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান  মাওলানা  মুফতি শিব্বির আহমদ, জামালগঞ্জ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজ রশীদ আহমদ, মাওলানা  নুরুলহক, মাওলানা মুখতার হোসাইন, মাওলানা  শরীফ খালেদ সাইফুল্লাহ, মাওলানা খলিলুর রহমান, প্রিন্সিপাল  মাওলানা মাহমুদুল হাসান, সিলেট জেলা জমিয়তের সাহিত্য সম্পাদক মুফতি খন্দকার হারুনুর রশীদ, ক্বারী মাওলানা মুখতার আহমদ, মাওলানা বিলাল উদ্দীন, মুফতি ইবাদুর রহমান,মাওলানা বদরুল আলম, মাওলানা যুবায়ের আল মাহমুদ, মাওলানা রফিক আহমদ মহল্লী, সিলেট জেলা ছাত্র জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক লুৎফুর রহমান, মহানগর সভাপতি মাওলানা হাসান আহমদ, সাধারণ সম্পাদক এম বেলাল আহমদ চৌধুরী, জেলা যুব জমিয়তের প্রচার সম্পাদক মুহাম্মদ রুহুল আমীন  নগরী, মাওলানা সিরাজুল ইসলাম, হাসান বিন ফাহিম, নোমান বিন হোসাইন,  আবুল কালাম আযাদ, হা: কায়সান মাহমুদ আকবরী,  আব্দুল মুহিত খান মুরাদ,  আতিক আহমদ নগরী,  আকবর হোসাইন, মাওলানা হাবিবুল্লাহ, কলেজ ছাত্র নেতা তুষার আহমদ,মাওলানা শামসুল ইসলাম, জাকির হোসাইন খান, হাফিজ ফুজায়েল আহমদ, হাফিজ শাহিদ হাতিমী, মাওলানা ফখরুল ইসলাম,মাওলানা ফরহাদ আহমদ প্রমুখ। জমিয়ত সংগীত পরিবেশন করেন হাফিজ আব্দুল করিম দিলদার । মাওলানা আতাউর রহমানের সভাপতিত্বে প্রথম অধিবেশনে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করেন,  হাফিজ ওয়ালি উল্লাহ।
অভিন্ন ভাষায় বক্তারা বলেছেন, বাংলাদেশে ইসলামী হুকুমত কায়েমের সংগ্রামে সর্বস্থরের তৌহিদী জনতাকে জমিয়তে উলামাযে ইসলামের পতাকা তলে সমবেত হতে হবে।  তারা বলেন, শাপলা চত্বরে আমাদের ভাইয়েরা যে রক্ত বির্জন দিয়েছেন তা বৃথা যেতেপারেনা। মুফতি ওয়াক্কাসের অবিলম্ভে মুক্তির দাবীজানিয়ে বলেন, বাতিলের মোকাবেলায় প্রয়োজনে রক্ত দিতে প্রস্তত রয়েছে হাজার হাজার জমিয়ত কর্মী। সাদা কালো পতাকা হাতে খন্ড খন্ড মিছিল সভায় যোগদান করেন কয়েকহাজার নেতা কর্মীর । নেতৃবৃন্দ বলেন, দেশ এখন দুর্নীতিবাজদেও দখলে রয়েছে, তাই দেশকে মুক্তকরতে উলামায়ে কেরামের নেতৃত্বে গণ আন্দোল গড়ে তোলার আহবান জানান। মাওলানা তাফাজ্জুল হক আজিজ, বিএনপি নেতা এম ইলিয়াস আলীসহ গুম হওয়া সকল নেতৃবৃন্দের জনসম্মুখে উপস্থিত করার জন্র সরকারের প্রতি আহবান জানাচ্ছি।
আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী  জমিয়তের অতীত ঐতিহ্য তুলেধরে তার আবেগময়কন্ঠে বক্তৃতায়  পুরো সমাবেশকে কাদিয়ে ফেলেন। তিনি বলেন, সরকার আগুন নিয়ে খেলা করছে। তাদেও মনে রাখতে হবে আলেম উলামাদেও সাথে বেয়াদবীর পরিনতি হয় ভয়াবহ। বিশ্ব ব্যাপী জুতা সংস্কৃতি চালু হয়েছে জনগন অতিষ্ট  হয়ে জুতাও নিক্ষেপ করতে পারে।

আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমী বলেন, বর্তমান সরকার দেশ পরিচালনায় ব্যর্থতার পরিচয় দিযেছে। দেশে জনগনের জানমালের নিরাপত্তা নেই। যে সরকার আলেম উলামাদের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে সে সরকার মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ট দেশের রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকার অধিকার নেই। তিনি জমিয়তকে সত্যিকারের ইসলামী সংগঠন উল্লেখ কওে বলেন, ঈমান ইসলাম হেফাজত করতে জমিয়তের পতাকাতলে সবাইকে আসতে হবে।
আব্দুর রব ইউসুফি বলেন, আমি শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুর হকের দেখানো  পথেই ইসলাম প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে ময়দানে ছিলাম এখনো আছি। দেশে রাজনৈতিক ময়দানে ইসলামী আন্দোলন করার জন্য নেতৃত্বেও প্রয়োজন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতৃত্বে মুরুব্বীগন আছেন বলেই আমি জমিয়তে যোগদান করেছি। তিনি বলেন, অর্থবহ রাজনৈতিক পদক্ষেপ গ্রহনের নামই রাজনীতি। তাই ইসলাম বিদ্বেষী এই সরকারকে হঠাতে হলে প্রয়োজন কঠোর আন্দোলন।
সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা শায়খ জিয়াউদ্দীন শাপলা চত্বরের রক্তদানকে ২য় কারবালা উলে­খ করে বলেন, হেফাজতে ইসলামের আন্দোলন ছিল সঠিক ঈমানী আন্দোলন। এই আন্দোলনে যারা জীবন দিয়েছেন, তাদেও রক্ত বৃথা যেতে পারেনা। তাদেও রক্তের বিনিময়েই এদেশে ইসলাম কায়েম হবে।
মোনাজাত পরিচালনা করেন, শায়খুল হাদীস হোসাইন আহমদ বারকুটি।Jomiyat_Photo[1]