Pages

Categories

Search

আজ- শনিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

হাসপাতালে গৃহবধুর লাশ ফেলে পালাল স্বামী-শ্বাশুড়ি

মে ৫, ২০১৭
অপরাধ, আইন- আদালত, টঙ্গী, লাশ
No Comment

নিজস্ব প্রতিবেদক : গাজীপুরের টঙ্গী সরকারী হাসপাতাল থেকে শুক্রবার সকালে ফাতেমা-তুজ-জোহরা মনিষা (২০) নামে এক গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। দুপুরে গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে মরদেহের ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।

গৃহবধুর বাবা ও পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ মানিষাকে তার স্বামী তারেক শ্বাসরোধ করে হত্যার করে লাশ হাসপাতালে রেখে পালিয়ে গেছে। নিহত মনিষা ঢাকার উত্তরার ১৩ নম্বর সেক্টরের ব্যবসায়ী মোস্তফা কামালের মেয়ে।

মোস্তফা কামাল জানান, প্রায় ১৬ মাস আগে উত্তরার দক্ষিণখান এলাকার দেওয়ান বাড়ির হাজী আক্তারুজ্জামানের ছেলে এএসএম তারেকের সাথে মনিষার বিয়ে হয়। তারেক একটি বেসরকারী ব্যাংকে চাকুরি করে। গত বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে তারেকের বাবা মোবাইলে ফোন দিয়ে জানায় মনিষা গলায় উড়না পেচিয়ে বাথরুমে ঝুলে ছিল। তাকে উদ্ধার করে উত্তরার বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে। রাত পৌনে ৩টার দিকে তিনি হাসপাতালে গিয়ে দেখি সেখানে তারেক ও তার বাবা-মা অপেক্ষা করছে। জরুরী বিভাগের চিকিৎসক মনিষারকে মৃত ঘোষণা করলে লাশ ফেলে স্বামী-শ্বাশুড়ি পালিয়ে যায়। পরে চিকিৎসকের পরামর্শে মানিষার লাশ টঙ্গী সরকারী হাসপাতালে আনা হয়। খবর পেয়ে টঙ্গী থানার পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। এক পর্যায়ে মানিষার শ্বশুরও গা ঢাকা দেয়।
তিনি আরো জানান, কিছুদিন আগে বাসার এসি নষ্ট হয়ে গেছে জানিয়ে মনিষা তাকে একটি নতুন এসি কিনে দিতে বলেছিল। সোমবার ছেলেকে দিয়ে তিনি এক লাখ টাকা পাঠিয়েছিলেন।
তিনি অভিযোগ করেন, তার মেয়েকে তারেক শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে। ওরা লাশ হাসপাতালে ফেলে পালিয়ে গেছে। ঘটনার পর থেকে তারেকের মোবাইল ফোন বন্ধ রয়েছে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে তারেকের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।

টঙ্গী থানার এসআই আবদুর রশিদের সাথে যোগাযোগ করা হলে জানান, টঙ্গী হাসপাতাল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এটি হত্যা না আত্মহত্যা ময়না তদন্তের রির্পোট পেলে জানা যাবে।