Pages

Categories

Search

আজ- মঙ্গলবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮

সেনা সদরের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানালো আমার দেশ

জানুয়ারি, ২০, ২০১২
ঢাকা
No Comment

ঢাকা: সেনা সদরে বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে সরবরাহ করা লিখিত ভাষ্যে দৈনিক আমার দেশ সম্পর্কে করা মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছেন পত্রিকাটির ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমান।

ওই মন্তব্যকে অনভিপ্রেত ও অনাকাঙ্খিত বলে দাবি তুলে বৃহস্পতিবার রাতেই সেনা সদরকে চিঠি দিয়েছেন তিনি।

সেনা সদর ও আই এস পি আর-এ ফ্যাক্সের মাধ্যমে এবং ডাক যোগে ওই চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছে আমার দেশ সূত্র।

একই সঙ্গে ওই চিঠির বক্তব্য সংবাদমাধ্যমগুলোর কাছেও পাঠিয়ে দেয় আমার দেশ কর্তৃপক্ষ।

সেনা সদরের পরিচালক (পি এস ও পরিদপ্তর) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মাসুদ রাজ্জাক বরাবর লিখিত চিঠিতে মাহমুদুর রহমান বলেন, ‘সেনা বাহিনীর পক্ষ থেকে অভ্যুত্থান বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে সরবরাহকৃত লিখিত ভাষ্যে দৈনিক আমার দেশ প্রসঙ্গটি দেখে বিস্মিত হয়েছি। আপনাদের ভাষ্যে উল্লেখ করা হয়েছে ‘গত ৩ জানুয়ারি ২০১২ “আমার দেশ” পত্রিকাটি “হলুদ সাংবাদিকতার অংশ হিসাবে” বাংলাদেশ সেনা বাহিনী সম্পর্কে দেশে বিভ্রান্তি সৃষ্টির অপপ্রয়াসে পলাতক মেজর জিয়ার ইন্টারনেটের বার্তাটি প্রকাশ করে।’ আমার দেশ মনে করে, আপনার এ উক্তিটি কেবল আপত্তিকরই নয়, সত্যেরও অপলাপ।’

আমার দেশ সম্পাদক বলেন, ‘উপরোক্ত আপত্তিকর বক্তব্যের জবাবে পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিতে চাই যে- আমার দেশ কখনো হুলদ সাংবাদিকতার আশ্রয় নেয় না। সংবাদপত্রের সকল নীতিমালা অনুসরণ করেই আমার দেশ প্রতিবেদন ও লেখা প্রকাশ করে থাকে। এ ক্ষেত্রেও তার কোন ব্যত্যয় ঘটেনি। আপনাদের লিখিত ভাষ্যেও স্বীকার করা হয়েছে যে, মেজর জিয়া’র অভিযোগ ই-মেইল ও ফেসবুক-ব্লগের মাধ্যমে ২৬ ডিসেম্বর প্রচারিত হয়। সেই ই-মেইলের সূত্র ধরে এবং ডিজিএফআই ও আইএসপিআর এর কর্মকর্তাদের মন্তব্যসহ সংবাদটি আমার দেশ জনগণের তথ্য জানার অধিকারের স্বার্থে ৩ ঢাকা: সেনা সদরে বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে সরবরাহ করা লিখিত ভাষ্যে দৈনিক আমার দেশ সম্পর্কে করা মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছেন পত্রিকাটির ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমান।

ওই মন্তব্যকে অনভিপ্রেত ও অনাকাঙ্খিত বলে দাবি তুলে বৃহস্পতিবার রাতেই সেনা সদরকে চিঠি দিয়েছেন তিনি।

সেনা সদর ও আই এস পি আর-এ ফ্যাক্সের মাধ্যমে এবং ডাক যোগে ওই চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছে আমার দেশ সূত্র।

একই সঙ্গে ওই চিঠির বক্তব্য সংবাদমাধ্যমগুলোর কাছেও পাঠিয়ে দেয় আমার দেশ কর্তৃপক্ষ।

সেনা সদরের পরিচালক (পি এস ও পরিদপ্তর) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মাসুদ রাজ্জাক বরাবর লিখিত চিঠিতে মাহমুদুর রহমান বলেন, ‘সেনা বাহিনীর পক্ষ থেকে অভ্যুত্থান বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে সরবরাহকৃত লিখিত ভাষ্যে দৈনিক আমার দেশ প্রসঙ্গটি দেখে বিস্মিত হয়েছি। আপনাদের ভাষ্যে উল্লেখ করা হয়েছে ‘গত ৩ জানুয়ারি ২০১২ “আমার দেশ” পত্রিকাটি “হলুদ সাংবাদিকতার অংশ হিসাবে” বাংলাদেশ সেনা বাহিনী সম্পর্কে দেশে বিভ্রান্তি সৃষ্টির অপপ্রয়াসে পলাতক মেজর জিয়ার ইন্টারনেটের বার্তাটি প্রকাশ করে।’ আমার দেশ মনে করে, আপনার এ উক্তিটি কেবল আপত্তিকরই নয়, সত্যেরও অপলাপ।’

আমার দেশ সম্পাদক বলেন, ‘উপরোক্ত আপত্তিকর বক্তব্যের জবাবে পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিতে চাই যে- আমার দেশ কখনো হুলদ সাংবাদিকতার আশ্রয় নেয় না। সংবাদপত্রের সকল নীতিমালা অনুসরণ করেই আমার দেশ প্রতিবেদন ও লেখা প্রকাশ করে থাকে। এ ক্ষেত্রেও তার কোন ব্যত্যয় ঘটেনি। আপনাদের লিখিত ভাষ্যেও স্বীকার করা হয়েছে যে, মেজর জিয়া’র অভিযোগ ই-মেইল ও ফেসবুক-ব্লগের মাধ্যমে ২৬ ডিসেম্বর প্রচারিত হয়। সেই ই-মেইলের সূত্র ধরে এবং ডিজিএফআই ও আইএসপিআর এর কর্মকর্তাদের মন্তব্যসহ সংবাদটি আমার দেশ জনগণের তথ্য জানার অধিকারের স্বার্থে ৩ জানুয়ারি প্রকাশ করে। ওই সংবাদ প্রকাশের প্রেক্ষিতে আই এস পি আর থেকে পাঠানো বক্তব্য ৫ জানুয়ারি হুবহু প্রকাশ করতেও আমার দেশ পত্রিকা কোন কার্পন্য করেনি।’

‘হলুদ সাংবাদিকতার অংশ হিসাবে’ উল্লেখ করে আমার দেশ সম্পর্কে আপনারা যে লিখিত ভাষ্য দিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হিসাবে আমি এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। তদুপরি সংবাদ সম্মেলনে আমার দেশকে আমন্ত্রণ না জানিয়ে একতরফা বিষোদগার করা নীতি নৈতিকতা এবং প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তার আচরণবিধি পরিপন্থি বলেই আমরা মনে করি।’

উল্লেখ্য, দৈনিক আমার দেশ একটি জাতীয় পত্রিকাই শুধু নয়, দেশের স্বাধীনতার পক্ষের একটি গুরুত্বপূর্ণ গণমাধ্যমও বটে। দেশব্যাপী এ পত্রিকার বিশাল পাঠক সমাজ রয়েছে। পত্রিকাটি দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব এবং জাতীয় স্বার্থের পক্ষে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে চলেছে। কিন্তু এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ পত্রিকাকে সেনা বাহিনীর সংবাদ সম্মেলনে আমন্ত্রণ না জানানোও দু:খজনক এবং অনভিপ্রেত। বাংলাদেশের জনগণ এবং রাষ্ট্রের স্বার্থ সম্পর্কে সচেতন থেকেই সততার সঙ্গে সাংবাদিকতার মহান দায়িত্ব প্রতিপালন করতে সকল প্রকার চাপ সত্ত্বেও আমরা অঙ্গীকারাবদ্ধ।’প্রকাশ করে। ওই সংবাদ প্রকাশের প্রেক্ষিতে আই এস পি আর থেকে পাঠানো বক্তব্য ৫ জানুয়ারি হুবহু প্রকাশ করতেও আমার দেশ পত্রিকা কোন কার্পন্য করেনি।’

‘হলুদ সাংবাদিকতার অংশ হিসাবে’ উল্লেখ করে আমার দেশ সম্পর্কে আপনারা যে লিখিত ভাষ্য দিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হিসাবে আমি এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। তদুপরি সংবাদ সম্মেলনে আমার দেশকে আমন্ত্রণ না জানিয়ে একতরফা বিষোদগার করা নীতি নৈতিকতা এবং প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তার আচরণবিধি পরিপন্থি বলেই আমরা মনে করি।’

উল্লেখ্য, দৈনিক আমার দেশ একটি জাতীয় পত্রিকাই শুধু নয়, দেশের স্বাধীনতার পক্ষের একটি গুরুত্বপূর্ণ গণমাধ্যমও বটে। দেশব্যাপী এ পত্রিকার বিশাল পাঠক সমাজ রয়েছে। পত্রিকাটি দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব এবং জাতীয় স্বার্থের পক্ষে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে চলেছে। কিন্তু এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ পত্রিকাকে সেনা বাহিনীর সংবাদ সম্মেলনে আমন্ত্রণ না জানানোও দু:খজনক এবং অনভিপ্রেত। বাংলাদেশের জনগণ এবং রাষ্ট্রের স্বার্থ সম্পর্কে সচেতন থেকেই সততার সঙ্গে সাংবাদিকতার মহান দায়িত্ব প্রতিপালন করতে সকল প্রকার চাপ সত্ত্বেও আমরা অঙ্গীকারাবদ্ধ।’