Pages

Categories

Search

আজ- বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

সাকার গুডস হিলকে বিনোদন কেন্দ্র করার দাবি

নভেম্বর ২২, ২০১৫
চট্রগ্রাম
No Comment

90cda93a797bc8a0ace221e4e0ee500f-IMG_20150729_110931একাত্তরের টর্চার সেল সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বাসভবন গুডস হিলকে জাতীয়করণ করে বিনোদন কেন্দ্র করার দাবি জানিয়েছেন সেই নির্যাতনের প্রত্যক্ষ সাক্ষী ম.সলিমুল্লাহ।

শনিবার রাতে শীর্ষ যুদ্ধাপরাধী সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের ফাঁসি রায় কার্যকরের পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় এ দাবি তুলে ধরেন তিনি।

তিনি বলেন,‘গুডস হিলের ড্রংয়িং রুমে নারীদের কিভাবে নির্যাতন করেছে তার প্রত্যক্ষ সাক্ষী আমি। সেখানে স্বাধীনতাকামীদের উপর কিভাবে অত্যাচার করা হয়েছে তা আজো ভুলিনি।’

বাড়িটির পাশে বেশ কয়েকটি স্কুল-কলেজ রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, গুডস হিলকে যাদুঘর করে বিনোদন কেন্দ্রে পরিনত করা হোক।

দুই যুদ্ধাপরাধীকে ‘জল্লাদ’ আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, যেভাবে দাপিয়ে বেড়িয়েছে তাতে বিশ্বাসই করতে পারিনি তাদের ফাঁসি হবে। শেষ পর্যন্ত ফাঁসি কার্যকর হওয়াতে ইতিহাসের দায় মোছন হলো।

স্বাধীনতার দীর্ঘ ৪৪ বছর বিচার না হওয়াতে হতাশ হয়ে পড়েছিলেন উল্লেখ করে সলিমুল্লাহ বলেন, মনে করেছিলাম তাদের বিচার আর হবে না। তাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাক্ষী দিয়েছি।

শেষ পর্যন্ত সরকার তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করায় খুশি বলে জানালেন মামলার অন্যতম এই সাক্ষী।

একাত্তরে যুদ্ধাপরাধের দায়ে ২০১৩ সালের ১ অক্টোবর সাকা চৌধুরীকে ফাঁসির দণ্ড দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১।

এ রায়ের বিরুদ্ধে ওই বছরের ২৯ অক্টোবর আপিল করেন সাকা। তবে সর্বোচ্চ সাজার প্রেক্ষিতে আপিল করেননি রাষ্ট্রপক্ষ। গত ১৮ নভেম্বর সেই আবেদন খারিজ করে ফাঁসির দণ্ড বহাল রাখেন আপিল বিভাগ।

শনিবার রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চান সাকা। কিন্তু রাষ্ট্রপতির ক্ষমা পাননি বিভিন্ন কটূক্তি করে সমালোচনার তুঙ্গে থাকা সালাউদ্দিন কাদের। যদিও কারাগারে তার সঙ্গে দেখা করে ছেলে হুম্মাম বলেছেন, তার বাবা প্রাণভিক্ষা চাননি। রাত ১২টা ৫৫ মিনিটে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে সাকা চৌধুরী ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়।