Pages

Categories

Search

আজ- বুধবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

শিশু হত্যার দায়ে বাবার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

নভেম্বর ১৬, ২০১৫
আইন- আদালত, গাজীপুর, সাজা
No Comment

full_404820621_1438405636নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

গাজীপুরে তিন মাসের শিশু কন্যাকে হত্যার দায়ে এক বাবাকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সোমবার দুপুরে গাজীপুর জেলা ও দায়রা জজ এ,কে,এম এনামুল হক এ রায় প্রদান করেন।

একই সঙ্গে আসামিকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো এক মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামির নাম মো. সোহেল রানা (৩২), তিনি গাজীপুর মহানগরীর লাঠিভাঙ্গা গ্রামের হাফিজুর রহমানের ছেলে।

গাজীপুর জজ কোর্টের পিপি অ্যাডভোকেট হারিছ উদ্দিন আহমদ জানান, ২০১৪ সালের ১৪ অক্টোবর সোহেল রানা ও তার স্ত্রী রাবেয়া আক্তার মহানগরীর কালাকৈর গ্রামে তার নানাশ্বশুরের বাড়ি বেড়াতে যান। এ নিয়ে সোহেল রানার সঙ্গে স্ত্রী রাবেয়ার কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ওই দিন দুপুরে রাবেয়া তার তিন মাসের শিশু কন্যা সোহানা আক্তারকে সোহেল রানার কাছে রেখে বাথরুমে গেলে কৌশলে সোহেল রানা তার মেয়ে সোহানাকে নিয়ে পালিয়ে যান। পরে কড্ডা ব্রিজের উপর থেকে তিনি তার মেয়ে সোহানাকে তুরাগ নদীতে নিক্ষেপ করে চলে যান।

পর দিন সকালে অনুশোচনায় কড্ডা ব্রিজের নীচে নদীতে নেমে মেয়েকে খুঁজতে থাকেন। দীর্ঘ কয়েক ঘণ্টা নদীর পানিতে খোঁজাখুঁজির সময় আশপাশে মানুষ জমে যায়। তারা সন্দেহবশত সোহেল রানাকে আটক জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি তার মেয়েকে নদীতে ফেলে হত্যার কথা স্বীকার করেন। পরে স্থানীয়রা তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেন।

এ ঘটনায় রাবেয়ার ভাই আসাদুল হক বাদী হয়ে জয়দেবপুর থানায় মামলা করেন। পরে সোহেল রানাকে গাজীপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে হাজির করা হলে দোষ স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন। জয়দেবপুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোবারক হোসেন আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এ বছর ৩১ অক্টোবর সোহেল রানার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়।

মামলায় ১০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়। দীর্ঘ শুনানি শেষে সোমবার গাজীপুরের জেলা ও দায়রা জজ এ,কে,এম এনামুল হক ওই রায় প্রদান করেন। রাষ্ট্র পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন পিপি মো. হারিছ উদ্দিন আহামদ, আসামি পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট মো. শাহজাহান।