Pages

Categories

Search

আজ- শুক্রবার ১৬ নভেম্বর ২০১৮

রাণীনগরে গৃহবধূকে ক্যাঁচির আঘাতে হত্যার চেষ্টা

নভেম্বর ১৭, ২০১৬
অপরাধ, আইন- আদালত, নওগাঁ
No Comment

raninagar-marpit-pic
আব্দুর রউফ রিপন, নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগরে গৃহবুধকে স্বামী কর্তৃক কাপড় কাটার ধারালো ক্যাঁচি দিয়ে আঘাত করে হত্যা করতে না পারায় গুরুতর আহত অবস্থায় ফেলে রেখে প্রতিবেশিদের ধাওয়া খেয়ে পালিয়েছে পাষন্ড স্বামী উজ্জল হোসেন। তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে মাঝে মধ্যেই এক সন্তানের জননী গৃহবধূ চাম্পা খাতুন (২৫) কে মারপিট করতো তার স্বামী।

রবিবার সন্ধ্যায় বাড়িতে লোকজন না থাকার সুযোগে উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে উজ্জল ক্ষিপ্ত হয়ে চাম্পা খাতুন কে হত্যার উদ্দ্যেশ্যে ধারালো ক্যাঁচি দিয়ে শরীরের প্রায় ১শ’ ২৪ জায়গায় আঘাত করে। তার আত্মচিৎকারে প্রতিবেশিরা এগিয়ে আসলে উজ্জল ধাওয়া খেয়ে পালিয়ে যায়। আহত ওই গৃহবধূকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে রাণীনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

জানা গেছে, উপজেলার কাশিমপুর ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের খোরশেদের মেয়ে চাম্পা খাতুন (২৫) এর সাথে একই গ্রামের কাছের আলী মন্ডলের ছেলে উজ্জল হোসেনের (৩৫) গত ৭ বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের কারণে চম্পাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে আসছিল স্বামী উজ্জল। উজ্জল নেশা করার জন্য টাকা চাইলে তাকে টাকা না দিলে রবিবার সন্ধ্যায় ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ করে স্ত্রী চাম্পাকে কাপর কাটা কেঁচি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় এলোপাতারি ভাবে আঘাত করার এক পর্যায়ে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসলে উজ্জল ক্যাঁচি ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। চাম্পাকে অজ্ঞান অবস্থায় স্থানীয়রা রাণীনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করায়। কতর্ব্যরত চিকিৎসক জানান, আহত চাম্পার শরীরে প্রায় ১৪০ টি সেলাই দিতে হয়েছে তবে বর্তমানে সে শংকা মুক্ত।

রাণীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমান জানান, বিষয়টি আমাকে মৌখিক ভাবে জানানো হয়েছে। যেহেতু মেয়েটির অবস্থা গুরুতর হওয়ায় চিকিৎসার জন্য হয়তো থানায় অভিযোগ দিতে দেরি হচ্ছে। অবিযোগ পেলেই আমি আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করবো।