Pages

Categories

Search

আজ- মঙ্গলবার ১৩ নভেম্বর ২০১৮

রাণীনগরে কুজাইল-সর্বরামপুর সড়ক যেন কাঁদা জমি

অগাষ্ট ৬, ২০১৭
জনদুর্ভোগ, নওগাঁ
No Comment


আব্দুর রউফ রিপন, নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার ২নং কাশিমপুর ইউপি’র কুজাইল বাজার হতে সর্বরামপুর হয়ে এনায়েতপুর পর্যন্ত প্রায় আড়াই কিলোমিটার মাটির রাস্তাটি যেন চাষ করা কাঁদা জমি। বর্তমানে এই মাটির রাস্তাটিতে বড় বড় খানা-খন্দক আর বৃষ্টির পানি-কাঁদাতে একাকার হওয়ায় ওই এলাকার জনসাধারনদের চলাফেরা করার জন্য চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

শুষ্ক মৌসুমে চলাচল করা গেলেও বর্ষা মৌসুমে হয়ে পড়ে রাস্তা নামক মরণ ফাঁদে। বিকল্প কোন যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় কাঁদা-পানিতে ভরা এই মাটির রাস্তাটিই তাদের একমাত্র ভরসা। প্রায় চার দশক ধরে এই সড়কটির উন্নয়নে কোন প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়নি। এই এলাকার তিন/চারটি গ্রামের বসবাসকারি সাধারণদের একমাত্র আশা অতিদ্রুত যেন এই মাটির রাস্তাটি পাঁকা করণ করা হয়।

জানা গেছে, বর্ষা মৌসুমে এই রাস্তা দিয়ে পায়ে হেটে চলাও চরম দূর্ভোগে পড়তে হয় পথচারীদের। বাধ্য হয়ে জীবন-জীবিকার টানে সকল কিছুকে উপেক্ষা করে কাশিমপুর, সর্বরামপুর, কুজাপাড়া, এনায়েতপুর গ্রামের প্রায় আড়াই কিলোমিটার এই মাটির পথেই চলাচল করতে হয়। এই এলাকায় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ নানা শ্রেণী পেশার হাজার হাজার মানুষের বসবাস। জরুরি স্বাস্থ্য সেবা নিতে এই মরণ ফাঁদ রাস্তা দিয়েই চলাচল করতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

এনায়েতপুর গ্রামের মো: রাজ্জাক হোসেন বলেন, আমাদের আতœীয়-স্বজনরাও খারাপ রাস্তার কারণে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া আমাদের বাড়িতে আসতে চাই না। এই গ্রামগুলোর অধিকাংশ কৃষিজীবী লোকের বসবাস। যোগাযোগ ব্যবস্থা খারাপ হওয়ার কারণে ফসল ওঠার পুরো মৌসুমে তাদের উৎপাদিত ফসলের নায্য মূল্য থেকেও বঞ্চিত হয়।

কশিমপুর গ্রামের সেলিম জানান, এমনিতেই এই মেঠো সড়কে চলাচল করতে কষ্ট হয়। তার উপর আবার কয়েক দিনের লাগাতার বৃষ্টিপাতে পানি-কাঁদা একাকার হওয়ায় বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে বের হচ্ছি না। নিজের মটরসাইকেল থাকলেও পাশের গ্রাম দিয়ে হেঁটে এসে প্রয়োজনের তাগিদে অন্যের গাড়ি ব্যবহার করছি।

২নং কাশিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মকলেছুর রহমান জানান, স্বাধীনতার পর থেকে অদ্যবদি ওই সড়ক একই অবস্থাই রয়েছে। মাঝে মধ্যে হয়তো কিছু সংস্কার হলেও স্থায়ী কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হওয়ায় বিশেষ করে বৃষ্টি মৌসুমে কাশিমপুর-সর্বরামপুর-এনায়েতপুর গ্রামবাসির চলাচলের চরম কষ্ট হয়। এলাকাবাসি আমাকে সড়কটি পাকা করণের ব্যাপারে অনেকবার বলেছে। এই সড়কটি পাকা করণ খুবই জরুরি। এই রাস্তার কাজের জন্য আমিও একাধিকবার উপড় মহল বরাবর লিখিত আবেদন দিয়েছি।

উপজেলা প্রকৌশলী সাইদুর রহমান মিঞা জানান, অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এই রাস্তাটি পাকা করণের জন্য একটি প্রস্তাবনা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলীর প্রধান কার্যালয় বরাবর পাঠানো হয়েছে। প্রস্তাবনাটি পাশ হলেই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব অন্যান্য সকল প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করে রাস্তাটি পাকা করণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।