Pages

Categories

Search

আজ- সোমবার ১৯ নভেম্বর ২০১৮

মেধাবী শিমু বাঁচতে চায়


মোঃ আঃ কাইয়ুম : আসন্ন জেএসসি পরীক্ষার্থী মেধাবী ফারজানা আক্তার সিমুর আর কোনদিন পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করা হবে কিনা তা নিয়তির উপরই ছেড়ে দিয়েছে তার হত দরিদ্র বাবা-মা। যখন তার সহপাঠীরা স্কুলের মডেল টেস্ট দিচ্ছে আর ফাইনাল পরীক্ষার জন্যে পুরোদমে প্রস্তুতি নিচ্ছে তখন দূরারোগ্য ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে সে এখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
শিমু গাজীপুরের কাপাসিয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এ বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য জেএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের প্রস্তুতি নিচ্ছিল। হঠাৎ করে সে গত ৪ অক্টোবর প্রচন্ড জ্বরে আক্রান্ত হলে চোখ-মুখ ফুলে যায়। সাথে সাথে তার দাতের মাড়ি দিয়ে রক্ত ঝড়তে থাকে ও প্রশ্রাবের সাথে প্রচুর রক্ত যেতে থাকে। এ অবস্থায় তাকে কাপাসিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক যাবতীয় লক্ষণ দেখে তাকে গাজীপুরে শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে। সেখানে দুইদিন ব্যাপী নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও চিকিৎসা শেষে অবস্থার উন্নতি না হলে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে নানা পরীক্ষা শেষে ডাক্তারগণ জানান শিমু দুরারোগ্য বøাড ক্যান্সারে আক্রান্ত। বর্তমানে সে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নতুন বিল্ডিং এর ৯০২ নং কক্ষের ৪৪ নং বেডে প্রফেসর ডা. তাসনিম আরার তত্বাবধানে রয়েছে। শিমুর চিকিৎসায় বিপুল পরিমাণে টাকা লাগবে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।
শিমুর হতদরিদ্র চা বিক্রেতা বাবা ফরিদ শেখের পক্ষে মেয়ের চিকিৎসার খরচ জোগানো কোনভাবেই সম্ভব হচ্ছেনা। আত্মীয় স্বজনদের সাহায্য সহযোগিতা আর ঋণের টাকায় তার প্রাথমিক চিকিৎসা চলছে। কাপাসিয়ার তরগাঁও গ্রামে দেড় কাঠা জমির উপর বাড়ি-ভিটে টুকুই তার একমাত্র সম্বল। বাড়ির পাশের ইট ভাটার কাছে ছোট একটি চায়ের দোকানের উপার্জনে দুই ছেলে ও দুই মেয়ের পড়াশুনা সহ ছয় সদস্যের পরিবারের ব্যয়ভার বহন করতেই সে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছে। তাই সে মেয়ের চিকিৎসার জন্য বিত্তবানদের সাহায্য কামনা করছে। সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা ঃ অগ্রণী ব্যাংক, কাপাসিয়া শাখা, সঞ্চয়ী হিসাব নম্বর ০২০০০০৩৩৯০১৯২, বিকাশ নম্বর ০১৮৪৩৭৯১০১৪।