Pages

Categories

Search

আজ- বুধবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ভালুকায় উচ্ছেদ অভিযানে বৃদ্ধকে মারধোরের ঘটনা ফেসবুকে তোলপাড় !

অক্টোবর ৫, ২০১৭
অনিয়ম, ময়মনসিংহ
No Comment


মোঃ রফিকুল ইসলাম রফিক, বিশেষ প্রতিনিধি : ভালুকায় উচ্ছেদ অভিযান চলাকালে নেতৃত্বদান কারী কর্মকর্তার হাতে লাঞ্চিত হয় সত্তরোর্ধ বৃদ্ধ ও নিজ হাতে বৃদ্ধকে লাথি ও গলাধাক্কা দেয়া এবং তার ছেলেদের মারধোরের ঘটনার ভিডিওটি ফেসবুকে আপলোড করার পর তা ভাইরাল হয়ে উঠে।

ঘটনাটি নিয়ে সাধারন লোকজনের মধ্যে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। দায়িত্বশীল কর্মকর্তার এহেন কার্যক্রমে বিষ্মিত হয়েছেন বিভিন্ন মহল। তারা বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকে বিভিন্ন কমেন্টে দিয়ে নিজেদের প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করে চলেছেন যা এখনো চলছে।

প্রকাশ, মঙ্গলবার সকাল থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ভালুকা সদর বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় উচ্ছেদ অভিযান চালায় সওজ। এ সময় উচ্ছেদ অভিযানের নেতৃত্ব দেন সওজ’র উপসচিব পদমর্যাদার (সম্পত্তি ও আইন বিষয়ক কর্মকর্তা) কামরুল ইসলাম। উচ্ছেদ চলাবস্থায় ভালুকা পুরাতন বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় ভালুকা এন্টারপ্রাইজ নামের একটি দোকানের বারান্দার অংশ ভাংচুর করতে গেলে কথা বলেতে চান এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী সত্তরোর্ধ বৃদ্ধ আঃ ছালাম। এগিয়ে আসে তার দু’ছেলেও।

এ সময় কামরুল ইসলাম উপস্থিত আইনশংখলা বাহিনীর তোয়াক্কা না করে নিজেই অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করা সহ বৃদ্ধকে গলাধাক্কা দিয়ে বারান্দা থেকে বের করে আনেন এবং তার গায়ে লাথি মারেন। বাদ দেননি তার দু’ছেলেকেও। উর্ধ্বতন কর্মকর্তার এহেন আচরন চমকে দেয় উপস্থিত দর্শনার্থীদের।

বিষ্মিত হয়ে পড়েন স্থানীয় প্রশাসনিক কর্মকর্তারাও যদিও কিছু বলার ছিলনা তাদের। এ ঘটনাটির ছবি ও ভিডিও ঘটনার দিন ফেসবুকে আপলোড করার পর বিভিন্ন শ্রেনী পেশার লোকজনের মধ্যে দেখা দেয়া মিশ্র প্রতিক্রিয়া। বিভিন্ন কমেন্টে তুলোধুনো করা হচ্ছে উক্ত কর্মকর্তাকে। একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তার আচরনের সীমাবদ্বতা কতোটুকু তা নিয়ে চলছে নানা গুঞ্জন।

যে ভাষায় কমেন্ট হচ্ছে তা উল্লেখ করা সম্ভব না। সচেতন মহলের মতে উচ্ছেদ অভিযান বাঁধাগ্রস্ত করার চেষ্ঠা করলে বিধি মোতাবেক ব্যাবস্থা গ্রহনের ক্ষমতা উক্ত কর্মকর্তার হাতে রয়েছে। অবস্থা আরো বেগতিক হলে তা দেখভাল করার জন্য আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরাও উপস্থিত ছিল। কিন্তু পরিস্থিতি এতোটা অবনতি ছিলনা যে কারনে নিজের হাতেই মারধোরের কাজটি শুরু করতে হবে। বিষয়টি দিনভর টক অব দি টাউনে পরিনত হয়।

সওজ কর্মকর্তার এ আচরনে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান যুবলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম পিন্টু। তিনি তাঁর ফেসবুক আইডিতে বেশ কয়েকটি ছবি পোষ্ট দিয়ে লেখেন ’উনি এমন আচরন করছেন কেন? গত ৩ অক্টোবর মঙ্গলবার ভালুকায় অবৈধ স্হাপনা উচ্ছেদ অভিযান করলেন উপসচিব কামরুল ইসলাম সাহেব। অভিযানে সাধারন মানুষ খুশি হলে ও কিছু কিছু বিষয়ে মানুষ ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

আচমকা ক্ষেপে সচিব সাহেব সাধারন নাগরিকের উপর হাত তুললেন, শিক্ষিত লোক হয়ে আচরন করলেন মুর্খের মত করে, কেন এ আচরন উনার? তিনি কি বুঝাতে চাইলেন আচরনের মাধ্যমে? জনগনের সুবিধার জন্য উচ্ছেদ অভিযান তাহলে জনগনের প্রয়োজনীয় টয়লেট ভেঙ্গে দিলেন কেন? এ আচরন সভ্য সমাজে অহেতুক উনার আচরনে ব্যক্তিগত ভাবে লজ্জা পেয়েছি। উনার এহেন আচরন ক্ষতিয়ে দেখবেন কি কৃর্তপক্ষ?

বেসরকারী টিভি চ্যানেল ২৪ এর স্টাফ রিপোর্টার জোনায়েদ শাহরিয়ার তার ফেসবুক আইডিতে ছবি ও ভিডিও আপলোড দিয়ে লিখেছেন ’একজন কামরুল ইসলাম তাং, সড়ক ও জনপথের ল এন্ড এস্টেট অফিসার। গেল মঙ্গলবার ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়কে বিনা নোটিশে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদকালে সাধারণ মানুষকে শারিরীক ভাবে লাঞ্চিত করেন।

জনগনের ট্যাক্সের টাকায় খেয়ে পড়ে এ কেমন আচরণ, অবৈধ দখলদার হলে আদালত বা ভ্রাম্যমাণ আদালত সাজা দেবে, তাকে সাধারণ মানুষ, আশিতিপর বৃদ্ধের গায়ে হাত, পা তোলার অধিকার কে দিলো…