Pages

Categories

Search

আজ- মঙ্গলবার ২০ নভেম্বর ২০১৮

পোলারে ইঞ্জিনিয়ার বানাইতাম ঃ মনিরের মা’র আহাজাড়ি

রাজীব সরকার, গাজীপুর ঃ
হরতাল আমার পুলারে আগুনে পুইড়া মারছে। আমি পুলারে ইঞ্জিনিয়ার বানাইতাম। কে আইনা দিব পুলারে? সরকারের কাছে বিচার চাই। ছেলের মৃত্যুর খবর পেয়ে এমনিভাবে প্রলাভ করছেন আর জ্ঞান হারাচ্ছেন মনিরের মা মনোয়ারা আক্তার মিনু।
নিহত মনির গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলা বড় কাঞ্চনপুর গ্রামের রমজান আলীর ছেলে। সে গনকচালা রেজিঃ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র।
বিএনপির নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোটের ৬০ ঘণ্টার হরতাল চলাকালে গত সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে গাজীপুরের চান্দনা চৌরাস্তা এলাকায় হরতাল সমর্থকদের দেওয়া আগুনে কভার্ডভ্যানে থাকা মনিরের শরীর ঝলসে যায়। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। হরতালের আগুনে ঝলসে যাওয়া পঞ্চম শ্রেনীর ছাত্র মনির হোসেন টানা তিন দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৪টায় মারা গেছেন। আগুনে তার শরীরের ৯৫ ভাগ ঝলসে যাওয়া এই স্কুল ছাত্র ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।
নিহতের মা আরো জানান, মনিরের গলায় ব্যাথা থাকার কারনে কালিয়াকৈর ডাক্তার দেখাতে নিয়ে যান তিনি। এ সময় তার বাবাকে দেখে বায়না ধরে বাবার সঙ্গে ঢাকা যাবে। অনেক মানা করার পরও বাবার সঙ্গে যায় মনির।
কিছুক্ষণ পরে জ্ঞান ফিরলে তিনি মনির মনির বলে কেঁধে উঠে বলতে থাকেন পুলারে আমি ইঞ্জিনিয়ার বানাইতাম বলতে বলতে আবার জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন নিহতের মা মিনু।

কালিয়াকৈর উপজেলার চাপাইর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো.সাইফুজ্জামান সেতু বলেন, মনিরের মৃতুর খবর পেয়ে ঢাকায় হাসপাতালে তার লাশ বাড়িতে আনার ব্যবস্থা করা হয়। বিকেল ৪ টায় নিহতের জানাজার নামাজ শেষ করে স্থানীয় কবর স্থনে দাফন করা হয়েছে।
জয়দেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমএম কামরুজ্জামান  ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ওই ঘটনায় জয়দেবপুর থানার এসআই মো. হাফিজুর রহমান বাদি হয়ে ৫৪ জনের নামোল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৩০-৪০ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। তবে এ পর্যন্ত ১২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকীদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, ফারুক, আফাজউদ্দিন, সোহেল রানা, আমজাদ, হুমায়ুন, জহিরসহ ১২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।