Pages

Categories

Search

আজ- বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

পীরগঞ্জে বিদ্যুতের লোডশেডিং চরমে গ্রাহকদের সীমাহীন দুর্ভোগ

সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭
অনিয়ম, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, রংপুর
No Comment


বখতিয়ার রহমান, পীরগঞ্জ(রংপুর ): পীরগঞ্জের বিদ্যুত পরিস্থিতির চরম অবণতি ঘটেছে । আর এ পরিস্থিতি তীব্র রুপ ধারন করছে প্রতিদিন সন্ধা থেকে পরদিন সকাল পর্যন্ত । সরকারের আশ^াসের পরেও আশানুরুপ উন্নতি হয়নি পীরগঞ্জের বিদ্যুত পরিস্থিতির ।
জানা গেছে, পীরগঞ্জে উপজেলা সদরে বিদ্যুত পরিস্থিতি কিছুটা সহনীয় থাকলেও গোটা উপজেলার পরিস্থিতি ভিন্ন । উপজেলার বিশেষ করে বড়দরগাহ, কুমেদপুর, ভেন্ডাবাড়ী , চৈত্রকোল, মদনখালী, শানেরহাট, মিঠিপুর সহ সকল ইউনিয়নেই বিদ্যুতের সমিাহীন লোড শেডিং বিরাজ করছে ।
এ সব ইউনিয়নের বিদ্যুত গ্রাহকের অভিযোগে জানা গেছে, সাম্প্রতিক সময়ে দিবারাত্রী ২৪ ঘন্টার মধ্যে গ্রাহকেরা ১০ ঘন্টাও বিদ্যুত পাচ্ছেন না । দিনের বেলায় লোড শেডিং কিছুটা কম থাকলেও সন্ধা থেকে লোড শেডিং ভয়াবহ রুপ নিচ্ছে । বিদ্যুত আসা যাওয়ারও নেই কোন নিদৃষ্ট সময় সীমা , তার পরেও ২/৩ ঘন্টা অন্তর অন্তর বিদ্যুৎ এলেও কোন সময় ৩০ মিনিট স্থায়ী হয় না। সর্বপরি চাহিদামত বিদ্যুত যেন মানুষের কাছে দূর্লভ ও স্বপ্নে পরিণত হয়েছে। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে রংপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর আওতাধীন সর্ব পর্যায়ের বিদ্যুত গ্রাহকরা।
এ বিদ্যুতের লোড শেডিং এর কারনে সন্ধার পর স্কুল কলেজের ছাত্র ছাত্রীদেও লেখা পড়া সহ সব ব্যাবসা প্রতিষ্ঠিান ও ক্ষদ্্র শিল্প গুলির স্বাভাবিক কাজ কর্ম চরম ভাবে ব্যহত হচ্ছে । তাদের দৈনন্দিনের আয়ের পথ প্রায় রুদ্র হয়ে গেছে । প্রচন্ড গরমে জনসাধারন রাতে স্বশ্চিতে ঘুমানোর সুযোগও পাচ্ছে না । এ যেন তাদের কাছে এক দুর্বিসহ যন্ত্রনার ।
এ দিকে বিদ্যুতের এ অবস্থাতে বিভিন্ন মহল থেকে বিদ্যুত বিতরন কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বেরও অভিযোগ উঠেছে । তাদের অনেকেই জানান, সমিতির পার্শবর্তী এলাকা গুলোতে লোড শেডিং অপেক্ষাকৃত কম হলেও দুরবর্তী এলাকা গুলিতে লোড শেডিং বেশী দেয়া হচ্ছে ।
বিদ্যুতের সার্বিক এ পরিস্থিতির ব্যাপারে রংপুর পল্লী বিদ্যুত সমিতিÑ১ এর জেনারেল ম্যানেজার নুরুর রহমান এর সাথে ১৩ সেপ্টেম্বর বুধবার কথা হলে তিনিও দুঃখ করে বলেন আমরাও চাই সার্বক্ষণিক বিদ্যুত রাখতে । কিন্তু কিভাবে সম্ভব ? এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন শঠিাবাড়ী পল্লী বিদ্যুত সমিতি- ১ ও এর আওতাধীন পীরগঞ্জ ও ভেন্ডাবাড়ী সাব ষ্টেশন মিলে এখন প্রায় ৫৮ মেগাওয়াট বিদুতের প্রয়োজন অথচ জাতীয় গ্রীড থেকে পাওয়া যাচ্ছে ২৫/২৬ মেগাওয়াট । আর যে কারনে লোড শেডিং দিতে হচ্ছে । আর রাতে চাহিদা আরও বেড়ে যাওয়ায় লোড শেডিং এর পরিমান বাড়াইতে হয় ।