Pages

Categories

Search

আজ- শনিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

পানির দরে বিক্রি হয়ে গেল ইয়াহু!

জুলাই ২৫, ২০১৬
তথ্য ও প্রযুক্তি
No Comment

VerizonYahoo-696x435তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক:
নতুন শতাব্দীর শুরুতে ডট–‌কম বুদবুদের সময়কার সাড়া জাগানো সংস্থা ইয়াহু শেষে বিক্রি হয়ে গেল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্টারনেট ভিত্তিক বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ইয়াহুর মূল ব্যবসা কিনে নিয়েছে দেশটির টেলিকম সংস্থা ভেরিজোন কমিউনিকেশন। মাত্র ৪ দশমিক ৮৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যে বিক্রি হয়েছে ইয়াহু। এর মাধ্যমে এক সময়ের ইন্টারনেট জায়ান্ট ইয়াহু যুগের সমাপ্তি হলো।

সোমবার ঘোষিত এই চুক্তিতে চীনের ই-কমার্স কোম্পানি আলীবাবার ১৫ শতাংশ মালিকানা রেখেছে ইয়াহু। এ ছাড়া ইয়াহু জাপানেও মালিকানা রয়েছে ইয়াহুর। যার মূল্য ৪০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ভেরিজনের সঙ্গে ইয়াহুর নিলামের লেনদেন শেষ হবে ২০১৭ সালের প্রথমার্ধ্বে।

তবে ২০০৮ সালেও ইয়াহুকে কিনে নিতে মাইক্রোসফট নগদ এবং শেয়ার মিলিয়ে যে ৪৪৬০ কোটি ডলারের দর দিয়েছিল, তার থেকে অঙ্কটা অস্বাভাবিক রকমে কম। তখন মাইক্রোসফটের এই দর খুব কম বলে চুক্তিতে রাজি হয়নি ইয়াহু।

দীর্ঘ পাঁচমাসের নিলাম শেষে সোমবার ইয়াহুকে কিনে নেয়ার তথ্য নিশ্চিত করেছে ভেরিজন। গত আট বছর ধরে ইয়াহুর ব্যবসায় ব্যাপক ঘাটতি দেখা যায়। চুক্তি অনুযায়ী, ইয়াহুর সার্চ, মেইল, ও কনটেন্ট ব্যবসার মালিকানা এখন থেকে ভেরিজনের।

ডট কম বুমের সময়ে বাজারে ইয়াহুর মোট সম্পদের পরিমাণ ছিল প্রায় ১২,৫০০ কোটি ডলার। কিন্তু তারপর থেকে ইন্টারনেটে গুগল, মাইক্রোসফট এবং ফেসবুক ও অন্যান্য সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটগুলির সঙ্গে প্রতিযোগিতায় কেবল পিছিয়ে পড়ার গল্প। খালি ক্ষতির খতিয়ান।

গত বছর দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকেও ইয়াহুর মোট ৪৪ কোটি ডলার ক্ষতি হয়েছে বলে খবর বেরিয়েছে। এক সময়ে নিত্য নতুন ইন্টারনেট পরিষেবা দিয়ে সাড়া ফেলেছিল ইয়াহু। খেলা থেকে শুরু করে নানা বিষয়ে তথ্য মিলত ইয়াহু ডট কম থেকে। তাদের সার্চ ইঞ্জিনও ছিল। কিন্তু কিছু পরে সার্চের সময়ে নিজস্ব ইঞ্জিনের বদলে গুগল ব্যবহার শুরু করে। ইয়াহু মেসেঞ্জার থেকে অনলাইন চ্যাটের সুযোগ ছিল। এখনও অনেকে ইয়াহু মেল ব্যবহার করেন। কিন্তু শুধুমাত্র সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট ফ্লিকার ছাড়া আর অন্য কোনও উল্লেখযোগ্য সংস্থা ইয়াহুর ঝুলিতে নেই।

এই যে এক সময়ের সাড়া জাগানো সংস্থাটি বিক্রি হয়ে গেল সে নিয়েও ইন্টারনেট কেমন যেন নিস্পৃহ। অন্যদিকে ইয়াহু কিনে ভেরিজোন বিশ্বের ইন্টারনেট মানচিত্রে স্থান করে নিতে চায়। কিছুদিন আগেই তারা আরেক ইন্টারনেট সংস্থা এ ও এল–‌কে কিনেছে। তবে ইয়াহু নামটা বজায় থাকবে, নাকি সেটা তুলে দেয়া হবে, তা পরিস্কার নয়।‌

উল্লেখ্য, ইয়াহু একটি বৃহৎ ইন্টারনেট ভিত্তিক বাণিজ্য প্রতিষ্ঠান। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের সানিভেল শহরে এর প্রধান কার্যালয় অবস্থিত। ডেভিড ফিলো ও জেরি ইয়াং ইয়াহু এর প্রতিষ্ঠাতা। ইয়াহু’র রয়েছে ওয়েবসাইট, সার্চইঞ্জিন, ইয়াহু ডিকশেনারী, ইয়াহু মেইল, ইয়াহু নিউজ, ইয়াহু গ্রুপ, ইয়াহু এন্সার, অ্যাডভার্টাইজমেন্ট, অনলাইন ম্যাপ, ইয়াহু ভিডিও, সোশ্যাল মিডিয়া সেবা ইত্যাদি। ইয়াহু যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম বড় ওয়েবসাইট।

১৯৯৪ সালের জানুয়ারী মাসে ইয়াহু চালু হলেই ইনকর্পোরেটেড হয় ১৯৯৫ সালের ১ মার্চ। ২০০৯ সালের ১৩ জানুয়ারি ইয়াহু ক্যারল বার্টজকে নিয়োগ দেয় প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবং পরিচালনা বোর্ডের সদস্য হিসেবে। ২০১১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর বার্টজকে প্রধান নির্বাহীর পদ থেকে অপসারন করা হয় এবং টিম মর্সকে অস্থায়ীভাবে এ পদটি দেয়া হয়। ৪ই জানুয়ারি ২০১২ সালে পেপালের সাবেক প্রেসিডেন্ট স্কট থম্পসনকে নতুন প্রধান নির্বাহীর পদে নিযুক্ত করা হয়।

সংবাদ সংস্থাগুলো তথ্য অনুসারে ইয়াহুর নিয়মিত ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল প্রায় ৭০০ মিলিয়ন। ইয়াহু দাবি প্রতি মাসে প্রায় ৫কোটি মানুষ ৩০টি ভাষায় ইয়াহু ব্যবহার করেতেন ।