Pages

Categories

Search

আজ- বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

পাঁচবিবিতে বাঁশখুর মাদ্রাসায় মনোনীত ব্যক্তিকে উপাধ্যক্ষ পদে নিয়োগের চেষ্টা

আহসান হাবিব, পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) সংবাদদাতা: জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে বাঁশখুর ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসায় মনোনীত ব্যক্তি প্রভাষক সোলায়মান আলীকে উপাধ্যক্ষ পদে নিয়োগ দেওয়ার চেষ্টা চলছে। আগামী ২১ জুলাই নিয়োগ বোর্ড নামক নাটকের প্রক্রিয়া চূড়ান্ত হয়েছে। এ ঘটনায় ম্যানেজিং কমিটির তিন সদস্য বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দিয়েছে। গত ৯ জুলাই ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকা থেকে মাদ্রাসার সভাপতি হিসেবে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) কে মনোনয়ন দেওয়া হয়। ১১ জুলাই মাদ্রাসায় মিটিং না করে তরিঘড়ি করে সভাপতির জয়পুরহাট অফিসে মিটিং করেন। মিটিংয়ে ২১ জুলাই উপাধ্যক্ষ পদে নিয়োগের সিন্ধান্ত গৃহীত হয়।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, একই মাদ্রাসার প্রভাষক সোলাইমান আলীর কাছ থেকে বিপুল পরিমান অর্থ নিয়ে উপাধ্যক্ষ পদে নিয়োগ দেওয়ার প্রচেষ্টা চলছে। প্রভাষক সোলাইমান আলী তার মনোনীত ৪ জনকে প্রক্সি পরীক্ষার্থী হিসাবে ঠিক করেন। তারা হলেন, মহব্বতপুর ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার প্রভাষক মীর শহিদ মন্ডল, প্রভাষক নুরুজ্জামান, শিরট্টি মাদ্রাসার প্রভাষক ওয়াহিদুল ইসলাম ও আক্কেলপুর ফাজিল মাদ্রাসার প্রভাষক মাসুম রব্বানী। মহব্বতপুর ফাযিল ডিগ্রি মাদ্রাসার প্রভাষক মীর শহিদ মন্ডল বলেন, প্রক্সি পরীক্ষার্থী হিসাবে আগামী ২১ জুলাই পরীক্ষা দেওয়ার কথা আছে। প্রবেশপত্রটি প্রভাষক সোলাইমান আলী আমাকে দিয়ে গেছেন। ম্যানেজিং কমিটির সদস্য জুয়েল হোসেন বলেন, উপাধ্যক্ষ পদে মনোনিত প্রার্থী সোলাইমান আলী নিজেও আমাকে ম্যানেজ করার জন্য এসেছিলেন। তিনি আরো বলেন, নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে অধ্যক্ষ ও সভাপতি একক ভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন। আমাদের দাবী ছিল নতুন কমিটির মিটিং মাদ্রাসায় করা হোক। কিন্তুু তা না করে অসৎ উদ্দেশ্যে কমিটি অনুমোদনের এক দিনের ব্যবধানে সভাপতির জয়পুরহাট কার্যালয়ে মিটিং করা হয়। বাঁশখুর ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আজাহারুল ইসলামকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নীতিমালা অনুযায়ী সবকিছু হচ্ছে।