Pages

Categories

Search

আজ- বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

পাঁচবিবিতে ওসি‘র সাহসী পদক্ষেপে ১২১ মাদক ব্যবসায়ী সুস্থ জীবনে ফেরার পথে

28-05-2016[1]
আহসান হাবিব, পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) সংবাদদাতা:
জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে ওসি আশরাফুল ইসলামের সাহসী পদক্ষেপে পৌর এলাকা মাদক ব্যবসা মুক্ত হতে চলেছে। এক সময় শহরের শতাধিক স্পর্টে জম জমাট মাদক ব্যবসা চলতো। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত দুর দুরান্ত থেকে আসা মাদক সেবীরা মাদকের আস্তানা গুলিতে ভীর জমাতো। মাদক ব্যবসার ব্যপকতা দিন দিন বেড়েই চলছিল। হাত বাড়ালেই মাদক মিলত। মাঝে মধ্যে পুলিশি অভিযানে ধর পাকড় চললেও জেল থেকে ফিরে এসে পূর্বের ব্যবসায় জরিয়ে পরতো। ফলে মাদক বিরোধী অভিযান আলোর মুখ দেখেনি। ২০১৫ সালের ৫ অক্টোবর ওসি আশরাফুল ইসলাম জেলায় আক্কেলপুর থানা থেকে পাঁচবিবি থানায় যোগদান করেন। মাত্র ৬ মাসে পাল্টে গেছে পাঁচবিবি থানার চিত্র। মাদক ব্যবসা ছেড়ে দিয়ে সুস্থ স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার স্বপ্ন দেখান। মাদক ব্যবসা ছেড়ে দিয়ে আলোর পথে আসতে প্রত্যেক ওয়ার্ডের মাদক ব্যবসায়ীদের নিয়ে তিনি আলাদা ভাবে সভা করেছেন। বৈধ ব্যবসা করে জীবন জীবিকা নির্বাহের জন্য কী ধরনের সহযোগীতা প্রয়োজন মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে শুনে তিনি নোট তৈরি করেন। মাদক ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন সময় ব্যবসা করতে গিয়ে জেলে যান। জেল থেকে বের করতে পরিবারের লোকজন এনজিও’র কাছে ঋণের জালে আটকা পরেন। তাই সকল মাদক ব্যবসায়ীদের দাবি ছিল এনজিও ঋণ পরিশোধ ও মাদক মামলা থেকে অব্যহতি পেতে সহযোগীতা। সৎপথে উপার্জন ও পুনর্বাসনের জন্য কেউ কেউ ভ্যান, রিক্সা, অটোভ্যান, সেলাই মেশিন, মুদি দোকান, চায়ের দোকান, লন্ড্রির দোকান, ফলের দোকান, গরু, ছাগল ও হাস মুরগী পালনে আর্থিক সহযোগীতা চান। এছাড়া বাড়িতে টিন, ছেলে মেয়েদের লোখাপড়া ও বিদেশে যাওয়ার কাজে সহায়তা চান। স্থানীয় জন প্রতিনিধি, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও দানশীল ব্যক্তি বর্গের সহযোগীতা নিয়ে ওসি আশরাফুল ইসলাম মাদক ব্যবসায়ীদের চাহিদা পূরণের চেষ্টা করেন। মাঝে মাঝে তাদের থানায় হাজির করে কাউন্সিলিং (আদেশ, উপদেশ) কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। ফলে ১‘শ ২১ জন মাদক ব্যবসায়ী অন্ধকার থেকে আলোর পথে আসতে শুরু করেছে। যোগ দানের ৪ মাসে ৬০ জন মাদক সেবিকে স্পর্টে গ্রেফতার করেন। পরে তাদের বাবা-মা ও স্ত্রীকে থানায় ডেকে ভাল হওয়ার শর্তে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেন। কয়েক জন মাদক সেবীকে ভালো হওয়ার জন্য আর্থিক সহযোগীতা দিয়ে তাবলীক জামাতে পাঠান। একজন মাদক সেবী কিশোরকে থানায় কাজে লাগিয়েছেন। আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি পুলিশের সেবা জনগনের দোর গোরায় পৌঁছে দেওয়ায় ওসি আশরাফুল ইসলাম আইজিপি পদকে ভূষিত হয়েছেন। রেল বস্তির নামজা জানান, ওসি’র আর্থিক সহযোগীতা পেয়ে মাদক ব্যবসা ছেড়ে দিয়ে ক্ষুদ্র ব্যবসা করে জীবিকা নির্বাহ করছি। ২/১ জন মাদক ব্যবসায়ী গোপনে মাদক ব্যবসা চালাচ্ছেন। ওসি‘র পরিবর্তনের সাথে সাথে মাদক ব্যবসা পূর্বের আকার ধারন করবে বলে তিনি জানান।
পাঁচবিবি থানার ওসি (অফিসার ইনচার্জ) আশরাফুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি আশাবাদ ব্যাক্ত করে বলেন, ১‘শ ২১জন মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে অন্তত ৫০ জন চিরদিনের জন্য মাদক ব্যবসা ছেড়ে দেবেন।