Pages

Categories

Search

আজ- সোমবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

নেসলের ন্যান-১ খেয়ে শিশুদের স্বাস্থ্যহানি

মে ২, ২০১৬
স্বাস্থ্য
No Comment

file (1)নিউজ ডেস্ক:
ম্যাগি নুডলসে সিসার খবরের পর শিশুদের দুধ নিয়ে নতুন করে বিপাকে পড়েছে নেসলে।

এবার অভিযোগ উঠেছে কৌটার দুধ ন্যান-১ নিয়ে।

শিশু খাদ্য ন্যান-১-এর ৪০০ গ্রাম দুধ কিনতে ক্রেতাদের খরচ হয় ৮৩০ টাকা। সন্তানদের বাবা-মা অভিযোগ, এ দুধ খেয়ে অসুস্থ হচ্ছে শিশুরা।

ন্যান-১ নবজাতক থেকে ৬ মাস বয়স পর্যন্ত দেয়া হয়।

সরেজমিনে জানা যায়, ন্যান-১-র দুধ খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ছে অনেক শিশু। কিন্তু দুধের কৌটা যে নষ্ট তা খালি চোখে বোঝার কোনো উপায় নেই। কিছু শিশু ফিডারের সাহায্যে ন্যাসলের এই দুধ খেয়ে অনবরত বমি করতে থাকে। এর পর পেট ব্যথাসহ জ্বর শুরু হয়।

এ ব্যাপারে বসুন্ধরায় থাকা মিসেস নাজিয়ার সাথে কথা হলে তিনি জানান, কিছুদিন আগে ন্যান-১ কিনেন তাঁর ৫ মাসের ছেলের জন্য। দুধ কেনার সময় দুধের মেয়াদ ঠিক আছে কিনা তা দেখেই দুধ কিনেছিলেন। কিন্তু দুধ ফিডারে দেয়ার পর দানা দানা হয়ে যায়। এরপর ফেরত দিতে গিয়ে সুপারশপটির কাছ থেকে হয়রানির শিকার হতে হয়। অনেক তর্কের করার পর ৮৩০ টাকার মধ্য থেকে কিছু অর্থ ফেরত পান ওই ক্রেতা।এর পর থেকে নেসলের ন্যান-১ কেনা তিনি আর কিনেন না বলে জানান।

নগরীতে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, অনেক ক্রেতা নেসলের গুঁড়াদুধে ক্ষুব্ধ হয়ে সুপারশপে ফেরত দিচ্ছেন। শিশুদের নানা রোগ থেকে রক্ষা করতেই নেসলের গুঁড়া দুধ কেনা থেকে বিরতও থাকছেন।

শহরের কয়েকটি ফার্মেসির কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ন্যাসলের ন্যান-১ গুঁড়াদুধের ব্যাপক ক্রেতা চাহিদা ছিল। কিন্তু বারবার ক্রেতা অভিযোগ পাওয়ায় এই শিশু খাদ্য আর বিক্রি করছেন না। এখন ন্যান-১ এর বদলে অন্য দুধ বিক্রি বেশি হয়।

এদিকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের অভিযোগ কেন্দ্রে গুঁড়াদুধ নিয়ে ব্যাপক অভিযোগ জমা পড়তে শুরু করেছে।

মূলত অভিযোগ এসেছে ন্যান ও ল্যাকটোজেন গুঁড়াদুধ নিয়ে।

বাংলাদেশ ব্রেস্টফিডিং ফাউন্ডেশনের (বিএমএস) চেয়ারপার্সন ড. এসকে রায় বলেন, মিথ্যা তথ্য দিয়ে মায়েদের গুঁড়োদুধ ব্যবহারে প্রলুব্ধ করা হলে মিডিয়ার নামে মামলা করতে হবে। প্রয়োজনে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করতে হবে। ফার্মেসি ও হাসপাতালের কাছে গুঁড়োদুধ বিক্রি রোধে নজরদারি বাড়াতে হবে।

উল্লেখ্য, গুঁড়োদুধ পানে নবজাতক শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। মায়ের দুধের কোন বিকল্প নেই। গুড়োদুধে শারীরিক ও মানসিক বিকাশ বাধাগ্রস্ত হয়।

সুইস ফুড জায়ান্ট নেসলের ভারতীয় শাখার তৈরি ম্যাগি নুডলসে মাত্রাতিরিক্ত সিসার উপস্থিতি শনাক্ত হওয়ার পর ভাবমূর্তি নিয়ে মারাত্মক সংকটে পড়ে নেসলে।

সুত্র: পূর্বপশ্চিমবিডি ডটকম।