Pages

Categories

Search

আজ- শনিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

নারী বিচারককে আপত্তিকর ম্যাসেজ দেয়ায় সাত বছরের জেল

জুলাই ২৪, ২০১৬
আইন- আদালত
No Comment

আদালতআইন-আদালত ডেস্ক:
নারী বিচারককে মোবাইলে আপত্তিকর ম্যাসেজ দেয়ার অভিযোগের মামলায় দোষী স্বাব্যস্ত করে আসামি মো. রেজওয়ানুল হক রিপনকে সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন সাইবার ট্রাইব্যুনাল।

রোববার বাংলাদেশ সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালের বিচারক কে এম শামসুল আলম এ দণ্ডাদেশ দেন। দণ্ডিত রিপন রংপুরের বাগপুরের পশ্চিমপাড়া গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে। রায়ে আসামি রিপনকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানা অনাদায়ে তাকে আরও ছয় মাসের কারাভোগ করতে হবে।

রায় প্রদানকালে আটক রিপনকে আদালতে হাজির করা হয়। দণ্ডিত আসামি রংপুরের অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম কামরুন্নাহার কাকলীকে ওই এসএমএস দিয়েছিল।

রাষ্ট পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন ট্রাইবুনালের পিপি মো. নজরুল ইসলাম শামীম এবং আসামি পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট অশোক কুমার বিশ্বাস।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, মশিউর রহমানসহ চারজনের বিরুদ্ধে দণ্ডিত আসামি রেজওয়ানুল হক রিপন রংপুর আদালতে দুটি মামলা করেন। ওই মামলায় রিপন বাদী হলেও মশিউরের জামিনের জন্য বিচারক কামরুন্নাহার কাকলীর উদ্দেশ্যে মোবাইলে ২০১৫ সালের ১০ ও ১২ মে কিছু মানহানিকর আপত্তিকর ম্যাসেজ পাঠান এবং তার জামিন দেয়ার জন্য অনুরোধ করেন।

ওই এসএমএসটি পাওয়ার পর বিচারক মামলার নথি দেখেন যে এটি জামিনযোগ্য ধারা। ওই ঘটনায় বিচারক রংপুরের কোতয়ালী থানায় ১২ মে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলাটি তদন্ত করে কোতয়ালী থানার উপ-পরিদর্শক ফেরদৌস ওয়াহিদ একই বছরের ৩০ জুন আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

গত বছরের ২৬ অক্টোবর আসামি রেজওয়ানুল হক রিপনের বিরুদ্ধে আভিযোগ গঠন করেন আদালত। এ মামলায় ১০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য প্রমাণ গ্রহণ করে ট্রাইবুনাল এ দণ্ড দেন।