Pages

Categories

Search

আজ- শুক্রবার ১৬ নভেম্বর ২০১৮

নান্দাইলে স্ত্রীর লাশ রেখে স্বামী পলাতক


এবি সিদ্দিক খসরু, নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার চরকামাটখালী গ্রামে নিজ ঘরে স্ত্রীর লাশ রেখে গভীর রাতে স্বামী পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে নান্দাইল মডেল থানা পুলিশ রোববার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। নিহত ফরিদা আক্তার (৩৮) উপজেলার বেতাগৈর ইউনিয়নের চরভেলামারী গ্রামের মো. জুমান আলীর মেয়ে। আর স্বামী স্বপন মল্লিক একই ইউনিয়নের চারকামাটখালী গ্রামের হাসেন মল্লিকের ছেলে। ফরিদার বোন মাজেদা আক্তার জানান, নির্যাতনের খবর শুনে তিনি শনিবার রাতে এসে আশপাশের লোকজনের কাছে জানতে পারেন, ফরিদাকে আহত অবস্থায় গফরগাঁও হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। কী ধরনের আহত হয়েছেন, তা জানার জন্য মাজেদা সেখানে অপেক্ষা করতে থাকেন। রাত সাড়ে ৮টার দিকে তাঁর বোনকে বাড়িতে আনা হয় গুরুতর অবস্থায়। এ সময় স্বপনকে জিজ্ঞেস করলে তিনি জানান, ডাক্তার বলেছেন খেয়ে ঘুমিয়ে পড়লেই সুস্থ হয়ে যাবে। পরে তিনি বোনের সন্তানদের নিয়ে পাশের একটি কক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন। ভোররাতে কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে বোনের কাছে গিয়ে দেখতে পান বোনজামাই নেই এবং নিস্তব্ধ অবস্থায় ফরিদা শুয়ে আছেন। শরীরে হাত দিয়ে দেখেন শরীর ঠান্ডা হয়ে আছে। পরে বুঝতে পারেন তাঁর বোন মারা গেছেন। ফরিদার বড় ভাই মো. বাচ্চু শিকদার অভিযোগ করে বলেন, ‘ছোট বোনের ওপর নির্যাতনের খবর পেয়েছি শনিবার। স্বপন মিয়া বিদেশ যেতে টাকার জন্য আমার বোনকে নির্যাতন করেছে। গত দুই বছর ধরে সে এ ধরনের নির্যাতন চালিয়েছে। নান্দাইল মডেল থানার উপপরিদর্শক ফিরোজ আহম্মেদ বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে ফরিদার ওপর নির্যাতন হয়েছিল। তাঁর ডান কানের অর্ধাংশ কাটা এবং রক্তাক্ত।