Pages

Categories

Search

আজ- শুক্রবার ১৬ নভেম্বর ২০১৮

দিনাজপুরে কোচিং সেন্টারের নামে কিশোর-কিশোরিদের অবাধ যৌন আনন্দ

ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০১৬
দিনাজপুর, বিশেষ প্রতিবেদন, সারাদেশ
No Comment

Dinajpurলায়ন ইসলাম বাবু, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:

কিশোর- কিশোরিদের অবাধ মেলামেশার ক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার কোচিং সেন্টার গুলো।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলা গুলোতে চলছে কোচিংয়ের নামে যৌন আনন্দ। শিক্ষার্থীরা কোচিংয়ের নাম করে বাড়ি থেকে বের হয়ে এদিক ওদিক ঘোরা ফেরা, ডেটিং ও গোপন অভিসার করছে।
বাঁধাহীনভাবে মেলামেশার সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছে এই কোচিং সেন্টার গুলো । বিশেষ করে পল্লী অঞ্চল থেকে আসা শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ছাত্রাবাস ও ছাত্রী নিবাস থেকে শহরে লেখাপড়া করে। তাদের অবিভাবকরা কাছে থাকে না । ফলে নিয়ন্ত্রণহীণভাবে তারা অপরিণত বয়সে প্রেমের স্বাদ মেঠাতে উদ্বিন্ন।

একে অপরের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য বিশেষ আর সাজ পোশাকে নিজেদের আরো আকর্ষণীয় করে তোলে। কোচিং সেন্টারের সামনে ব্যাচ বদলের মাঝখানে চলে কিশোর-কিশোরিদের আড্ডাবাজি । যা অনেকে অনেক সময় দৃষ্টি কটুর পর্যায়ে থাকে। ক্লাস সেভেন কিংবা এইটের ছেলে মেয়েরা প্রেমের জোয়ারে হাবুডুবু খায় । আর এই সূত্র ধরে চলে গোপন অভিসার বা ডেটিং।

প্রেমিক – প্রেমিকাকে নিয়ে রেষ্টুরেন্ট, হোটেল – মোটেলে গল্পগুজব করে সময় কাটিয়ে মনের তৃপ্তি মেটায়। এসময় তাদের সাথে থাকে স্কুল ব্যাগ বইপত্র ইত্যাদি। এই বয়সের কিশোর কিশোরিরা নিজেদের উপর নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারে না। যে কোন সময় যৌন মেলামেশায় ভুল পথে পা বাড়িয়ে দেয় ।
ফলে বাল্য বিবাহ, অবৈধ গর্ভপাত, বিবাহ বিচ্ছেদের মতো ঘটনা ঘটে যায়।

শিক্ষার্থীরা কোচিংয়ের নাম করে গোপন অভিসারের উদ্দেশ্যেহীনভাবে ঘোরা ফেরা করার সময় নির্জন স্থানে ,পার্কে বা কোন অবাঞ্চিত স্থানে তারা অনেক ক্ষেত্রে স্থানীয় যুবক ও সন্ত্রাসীদের হাতে আটক হয়ে মোবাইল, স্বর্ণ, টাকা পয়সা ছিনতাই ও নাজেহালের শিকার হয়েছে। আর অনেক সময় পুলিশের হাতে আটক হয়ে জেল হাজতেও যেতে হয়েছে অনেক শিক্ষার্থীকে। আর সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হতে হয় অভিভাবকদের।

কোচিং সেন্টারগুলো ভদ্র সমাজের জন্য এখন কাল হয়ে দাড়িয়েছে। সরকারী স্কুলে শিক্ষার্থীদের যদি মানসম্মত লেখাপড়া হতো তাহলে কোচিং সেন্টারগুলোর প্রয়োজন হতো না। সরকারী স্কুল লেখাপড়ার মান নিম্নমূখী হওয়ার সুযোগে শিক্ষার্থীদের জিম্মি করে দিনাজপুর শহর সহ জেলার সব উপজেলা গুলোতে ব্যাঙের ছাতার (ছত্রাক) মত গড়ে উঠেছে নতুন নতুন কোচিং সেন্টার।

সরকারের পক্ষ থেকে কোচিং সেন্টারগুলির উপর প্রজ্ঞাপন জারী করেও বন্ধ করতে ব্যর্থ হয়েছে। অবাধে চলছে শিক্ষা নিয়ে ব্যবসা। আর এই ব্যবসার পণ্য হচ্ছে ছাত্র-ছাত্রীরা।

এমতাবস্থায় সরকারের শিক্ষা বিভাগ কোচিং সেন্টারগুলোকে নিয়ন্তণে কঠিন পদক্ষেপ নিবেন এমনটি প্রত্যাশা দিনাজপুর শহর সহ সব উপজেলাবাসীর।