Pages

Categories

Search

আজ- সোমবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ত্রিশালে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে জমি দখলের চেষ্টা

অগাষ্ট ৩, ২০১৬
অধিকার, আইন- আদালত, ময়মনসিংহ
No Comment

court2[1]
এইচ এম মোমিন তালুকদার, ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের ত্রিশালে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে মেঘনা গ্রুপের লোকজন সাইনর্বোড ভাংচুর ও পুড়িয়ে দিয়ে জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ত্রিশাল থানায় অভিযোগ করেও কোন সুরহা পাচ্ছেননা মামলার বাদী শাহ আলম।
জানা গেছে, উপজেলার আমিরাবাড়ী ইউনিয়নের সাইনর্বোড এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পূর্ব পাশে মেঘনা গ্রুপের একটি প্রজেক্ট এর সীমানা প্রচীরের কাজ চলছে। প্রজেক্ট এলাকায় স্থানীয় মোঃ শাহ আলম এর প্রায় ২৫শতাংশ জমি রয়েছে। যার দাগ নং সাবেক ২৪১ হালদার ২৮৯ খতিয়ান নং ৩০৩। জমিটি ক্রয় না করেই মেঘনা গ্রুপের জমির দালালরা মিলে দির্ঘ দিন ধরে জমি দখলের পায়তারা চালাচ্ছে। এ বিষয়ে শাহ আলম বাদী হয়ে ময়মনসিংহের বিজ্ঞ সিনিয়র সহকারী জজ ত্রিশাল আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ১৮০/২০১৬ অন্য প্রকার। মামলার প্রেক্ষিতে গত ২০/০৭/২০১৬ ইং তারিখে ময়মনসিংহের ত্রিশাল সহকারী জজ আদালতে সিনিয়র সহকারী জজ বেগম উম্মে সালমা আদেশ দেন যে, মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত নালিশী জমিতে উভয় পক্ষকে স্থিতাবস্থায় বজায় রাখার জন্য। উক্ত আদেশ ত্রিশাল থানা পুলিশকে অবগত করা হয়। এছাড়াও আদেশ নামা সাইনর্বোডে লিখে জমিতে টানানো হয়। অভিযোগে জানা গেছে, গত ২৭ জুলাই ২০১৬ইং তারিখে দুপুর সাড়ে ১২টায় মেঘনা গ্রুপের জমির দালাল খাদেমুলের নেতৃত্বে এক দল সন্ত্রাসী নালিশী ভূমিতে গিয়ে আদালতের নির্দেশানা সাইনর্বোড ভাংচুর করে ও পুড়িয়ে ফেলে জমি দখলের চেষ্টা চালায়। এ সময় মামলার বাদী শাহ আলম বাধা দিতে গেলে তাকে অশ্লীল ভাষায় গালি-গালাজ করে এবং মারপিঠের চেষ্ঠা করলে সে দৌড়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনার পর ঐ দিন সন্ধায় শাহ আলম বাদী হয়ে ত্রিশাল থানায় এ বিষয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করলেও এখন পর্যন্ত পুলিশ কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেননা।
স্থানীয় সাদেক জানান, শাহ আলমের জমিতে সাইনবোর্ড ছিলো। কোম্পানির লোকজন এই সাইনবোর্ড ভেঙ্গে ফেলেছে।
অভিযোগকারী শাহআলম জানান, আমার এই জমির বিষয়ে মামলা করায় আমাকে জমির দালাল খাদেমূল সহ কোম্পানির লোকজন প্রাণ নাশের হুমকি দিচ্ছে। থানায় অভিযোগ করেও কোন ফল পাচ্ছিনা।
মেঘনা গ্রুপের স্থানীয় জমির দালাল খাদেমুলের কাছে এবিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, কোম্পানি যার কাছ থেকে জমি ক্রয় করেছে সে কোন মামলা করে নাই।
ত্রিশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনিরুজ্জামানের সাথে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে মেঘনা গ্রুপের লোক জন নালিশী ভুমিতে অনাধিকার প্রবেশ করে সাইনর্বোড ভাঙার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যেহেতু জমি সংক্রান্ত বিষয় তাই দুই পক্ষকে ডেকে সমাধানের চেষ্টা করে যাচ্ছি।