Pages

Categories

Search

আজ- বুধবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ঝালকঠি-১ আসনে বিএনপির প্রার্থী হতে আগ্রহী ছাত্রদল নেতা সৈকত

অক্টোবর ৯, ২০১৭
ঝালকাঠি, রাজনীতি
No Comment


ঝালকাঠি প্রতিনিধি : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঝালকাঠি-১ (কাঠালিয়া-রাজাপুর) আসনে বিএনপি’র মনোনয়ন চান বাংলাদেশ জাতীয়তাবাাদী ছাত্রদল কেন্দ্রীয় কমিটির সহঃ সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম আযম সৈকত।

এ আসনটিতে তিনিই একমাত্র ছাত্র নেতা মনোনয়ন প্রত্যাশী। দলীয় মনোনয়ন লাভের আশায় ইতোমধ্যে তিনি এলাকায় গণসংযোগ শুরু করেছেন। এলাকার নেতা-কর্মীদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলার পাশাপাশি তিনি চালিয়ে যাচ্ছেন নানা তৎপরতা।

ছাত্রদলের এ নেতা ১৯৮১ সালে ঝালকাঠি জেলার কাঠালিয়া উপজেলার ছোট কৈখালী গ্রামে এক সম্ভ্রন্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। পিতা আলহাজ্ব মাওলানা মোঃ আব্দুল করিম বিশিষ্ট সমাজসেবক ও পেশায় একজন শিক্ষক ছিলেন।

২০০০ সালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজ বিজ্ঞানে বি.এস.এস (সম্মান) ও ২০০১ সালে একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃতিত্বের সাথে এম.এস.এস ডিগ্রী লাভ করেন। বর্তমানে তিনি মেট্রাপলিস আইডিয়াল ‘ল” কলেজ তেজগাঁও ঢাকায় এল.এল.বি শেষ বর্ষে অধ্যায়ণরত।

জানা গেছে, জাতীয়তাবাদের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে ১৯৯৫ সালে তিনি সক্রিয়ভাবে ছাত্রদলের রাজনীতিতে পা রাখেন। ১৯৯৭ সালে সরকারি কবি নজরুল কলেজের সদস্য ও ১৯৯৬-১৯৯৯ সাল পর্যন্ত ঢাকা কোতয়ালী থানার ৭৩ নং ওয়ার্ড ছত্রদলের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ১৯৯৮ সালে ছাত্রদলের আহবায়ক হন। পরে তিনি ২০০৩ সালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ শাখা ছাত্রদলের যুগ্ন সম্পাদক নির্বাচিত হন।

কলেজ ছাত্রদলের কমিটিতে স্থান পাওয়ার পর থেকে তার দলীয় কর্মকান্ড নজরে আসে কেন্দ্রীয় নেতাদের। তার মেধা ও যোগ্যতায় ২০১২ সালে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটিতে সদস্য হিসেবে জায়গা করে নেন তিনি। এরপর ২০১৫ সালে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন তিনি ।

জানা যায়, দীর্ঘ ২২ বছর ধরে তিনি ছাত্র রাজনীতির সাথে জড়িত। চাওয়া-পাওয়ার হিসেব না করে দলের হয়ে কাজ করে চলেছেন । দলীয় বিভিন্ন কর্মসূচীতে অগ্রভাগে থেকে তিনি দলকে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন। সকল ভয় ভীতি উপেক্ষা করে একজন সফল ছাত্রনেতা ও একজন দক্ষ সংগঠক হিসেবে দলের দুঃসময়ে জীবনবাজী রেখে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার সংগ্রামে কাজ করে চলেছেন ।

ছাত্র রাজনীতিতে আসার পর থেকে এ পর্যন্ত গণতান্ত্রীক আন্দোলনে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারুণ্যের অহংকার সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমানের ঘোষিত সকল দলিয় কর্মসূচি, আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয় অংশগ্রহণ করে আসছেন। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা ও ছাত্রদের ন্যায্যদাবি আদায়ের লক্ষ্যে অতন্দ্রপ্রহরীর মতো রাজপথে অগ্রনী ভূমিকা পালন করতে গিয়ে রাজনৈতিক মামলায় একাধিকবার কারাবরণ করেছেন। রাজপথে বিরোধীদের পোষা সন্ত্রাসবাহীনিদের আক্রামন ও নির্যাতনে বহুবার প্রাণশংকায় থেকেও পিছু হটেননি।

বিশেষ করে তত্ত¡াবধায়ক সরকারের দাবীতে বিগত আন্দোলণে তিনি বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখেন। বাঘা বাঘা নেতারা যখন ঘরে বসে ছিলেন তখন তিনি জেল-জুুলুমের তোয়াক্কা না করে ঢাকার রাজপথের আন্দোলণে অংশ নেন। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশে শিক্ষা, ঐক্য ও প্রগতির পতাকা হাতে নিয়ে তিনি ছুটে চলেছেন দেশের নানা প্রান্তে।

রাজনৈতিক দিক দিয়ে তিনি যেমন অগ্রসর ঠিক তেমনি সমাজসেবায়ও পিছিয়ে নেই, সমাজসেবা মূলক বিভিন্ন কর্মকান্ডের সাথে জড়িত রয়েছেন তিনি ঝালকাঠি-১ (কাঠালিয়া-রাজাপুর) এলাকার মাটি ও মানুষের সাথে তার রয়েছে নাড়ীর সম্পর্ক। এলাকার অবহেলিত-বঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে এলাকার উন্নয়নে কাজ করে যেতে চান তিনি।