Pages

Categories

Search

আজ- শনিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৮

জয়দেবপুর রেলজংশনে পানির অভাব, টয়লেট ব্যবস্থা না থাকা ও বিশ্রামাগার স্বল্পতায় দুর্ভোগ

?

?

মঞ্জুর হোসেন মিলন: দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল ও পশ্চিম-দক্ষিনাঞ্চলের মানুষের রেলপথে যোগাযোগের গেইটওয়ে জয়দেবপুর রেলজংশন। প্রতিদিন এই জংশন ৫০/৫২ বার ট্রেন অতিক্রম করে। গুরুত্বপূর্ণ এই রেলজংশনে পানির অভাব, টয়লেট ব্যবস্থা না থাকা ও বিশ্রামাগারের আসনস্বল্পতায় যাত্রী সাধারণের দুর্ভোগের শেষ নেই।

আজ ২ নভেম্বর সরেজমিনে জয়দেবপুর রেলজংশনে ট্রেনযাত্রীদের সাথে এ প্রতিবেদকের কথা হয়। এই রেলজংশনের দুইটি প্লাটফর্মের বেশীর ভাগই ফাঁকা, নেই পর্যাপ্ত যাত্রীছাউনী বা সেট। ছোট বিশ্রামাগারে আসনস্বল্পতা। বেশীরভাগ সময়ই বিশ্রামাগারটি দখলে থাকে পুলিশ আর রেলকর্মীদের। মহিলাদের জন্য আলাদা কোনো বিশ্রামাগার নেই- নেই পানি ও টয়লেট ব্যবস্থা। জামালপুরের মেলান্দহ যাবেন মো: শহীদ মিয়া। তিনি অভিযোগ করে বলেন, এখানে পানি খাওয়ার ব্যবস্থা নেই। প্রশ্রাব করতে দিতে হয় ১০টাকা। বসারও জায়গা নেই। ময়মনসিংহের ট্রেনের অপেক্ষায় প্লাটফরমের পাকার উপর বালিতে বসে আছেন আক্রাম হোসেন। তিনি বলেন, এতো গুরুত্বপূর্ণ একটি স্টেশনে বসার ব্যবস্থা না থাকায় মানুষের কষ্ট হচ্ছে।
জয়দেবপুর রেলজংশনের মাস্টার মো: শহীদুল ইসলাম গাজীপুর দর্পণকে জানান, একটি বেসরকারি মোবাইল কম্পানি যাত্রীদের পানির ব্যবস্থা করে দিতে চায় কিন্তু জায়গার অভাবে পারছেনা। প্রতিদিন এই স্টেশন থেকে দশ হাজারের বেশী লোক দেশের বিভিন্ন স্থানে যায়। অথচ এর চেয়ে কম গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনের অবস্থা অনেক ভালো। জয়দেবপুর স্টেশন থেকে মাসে এক কোটি টাকার বেশী রাজস্ব পায় সরকার। এরপরও যাত্রীসেট ও সিমেন্টের বেঞ্চ বানানোর প্রস্তাব পাঠিনো হলেও হচ্ছেনা।