Pages

Categories

Search

আজ- বুধবার ২১ নভেম্বর ২০১৮

চোরাচালানসহ সীমান্ত অপরাধ প্রতিরোধ হিলি সীমান্তে সিসি টিভি ও ফ্লাড লাইট স্থাপন

ডিসেম্বর ১৫, ২০১৬
নওগাঁ
No Comment
????????????????????????????????????

????????????????????????????????????

প্লাবন গুপ্ত শুভ, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : চোরাচালান, অনুপ্রবেশসহ সীমান্তে অপরাধ প্রবণতা প্রতিরোধে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এর উদ্যোগে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় দিনাজপুরের হিলি সীমান্তে ১৮টি সিসি টিভি ও ১০টি ফ্লাড লাইট স্থাপন করা হয়েছে।
এই প্রথম সীমান্তে চোরাচালান, অনুপ্রবেশ ও সীমান্ত অপরাধ প্রবণতা প্রতিরোধ কল্পে বিজিবি হিলি সিপি ক্যাম্পের আওতায় হিলি স্থলবন্দর ও হিলি রেলস্টেশনে সিসি টিভি ও ফ্লাট লাইট স্থাপন কাজের উদ্বোধনসহ হিলি চেকপোস্ট গেটে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি সম্বলিত অভ্যর্থনা ফলক উন্মোচন করেন বিজিবি রংপুর রিজিয়নের রিজিয়নাল কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শাহরীয়ার আহমেদ চৌধুরী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিজিবি দিনাজপুর সেক্টরের সেক্টর কমান্ডার কর্নেল হোসেন, বিজিবি ২০ জয়পুরহাট ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মোস্তাফিজুর রহমান।
বিগ্রেডিয়ার জেনারেল শাহরীয়ার আহমেদ চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, হিলি স্থলবন্দর ও হিলি সীমান্ত এলাকা খুব গুরুত্বপূর্ণ এলাকা। এই স্থলবন্দর দিয়ে মালামাল আমদানি-রপ্তানিসহ পাসপোর্টধারী মানুষ বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে যাতায়াত করে থাকেন। সীমান্তে বিজিবি’র ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে সিসি টিভি ও ফ্লাড লাইট অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। সীমান্তের উভয় দেশের চোরাচালানীরা খুবই সক্রিয়। চোরাচালানীদের অপতৎপরতা বন্ধ হলে সরকারের রাজস্ব অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে। এজন্য বিজিবি সদস্যরা সীমান্তে দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন। সীমান্ত নিরাপদ সীমান্তে কী হচ্ছে? তা সিসি টিভি ও ফ্লাড লাইটের মাধ্যমে দেখা যাবে এবং ফুটেজ ধারণ করা থাকবে। কেউ যদি অপরাধ করে পালিয়েও যায়, তবে সিসি টিভির ফুটেজ দেখে অপরাধী সনাক্ত ও তাকে আইনের আওতায় আনা সহজ হবে। সীমান্তে শান্তি ও শৃঙ্খলা বজায় রাখা বিজিবি’র দায়িত্ব।
বিজিবি ২০জয়পুরহাট ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, হিলি সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্টে ১৮টি সিসি টিভি ও ১০টি পয়েন্টে ফ্লাড লাইট স্থাপন করা হয়েছে। এর মাধ্যমে হিলি সীমান্তে চোরাচালান, অনুপ্রবেশসহ সীমান্ত অপরাধ শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনা সম্ভব হবে এবং সীমান্তে আধুনিক নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনা গড়ে ওঠবে।