Pages

Categories

Search

আজ- শনিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৮

চিরিরবন্দরে সড়ক দূর্ঘটনা রোধে চালকদের প্রশিক্ষন প্রয়োজন

chirirbandar]

মোহাম্মদ মানিক হোসেন, চিরিরবন্দর(দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার গ্রামীণ শহর রাণীরবন্দর থেকে নতুন ভুষিরবন্দর যেন মৃত্যু ফাদঁ তৈরী হয়েছে। রানীরবন্দর থেকে ভুষিরবন্দর ৪ কি:মি রাস্তায় প্রতিবছর প্রায় ১০টির বেশী সড়ক দুঘর্টনা ঘটে থাকে। দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়কের উপর প্রতিনিয়তই ঘটছে এ সড়ক দূর্ঘটনা । যত্র তত্র ভাবে মহাসড়কে গাড়ি বেড়েই চলছে তাই সড়ক দূর্ঘটনা রোধে চালকের প্রশিক্ষন প্রয়োজন। সবাই ধারনা করছে অদক্ষ চালকদের কারণে সড়ক দূর্টনা ঘটছে।
সড়কে দূর্ঘটনা থেকে রেহাই পাচ্ছে না সাধারন মানুষ। বেশীর ভাগ দূর্ঘটনা হচ্ছে যান চলাচল ও বাসের দূর্ঘটনা এবং ট্যাম্পু সহ ব্যাটারী চালিত অটো ভ্যান দিয়ে।
জানা গেছে, গত ১ই সেক্টেমবর বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টায় মো: শরিফ নামে কীটনাশক ব্যবসায়ি জেলা সদর দিনাজপুর থেকে বাড়ি ফেরার পথে ভূষিরবন্দর আত্রাই নদীর পুলে বিপরীত দিক থেকে আসা দ্র“তগামী গেটলক চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। দূর্ঘটনায় শরিফের দু’পা-দু’হাত থেতলে যায়। গুর“ত্ব আহত অবস্থায় রংপুর মেডিক্যেল কলেজ হাসপাতলে নেওয়ার সময় রাস্তায় তার মৃত্যু হয়। সে উপজেলার আলোকডিহি ইউনিয়নের গছাহার গ্রামের মৃত আকবর আলীর পুত্র মো: শরিফ রাণীরবন্দর হাটের কীটনাশক ব্যবসায়ি। তার মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

এদিকে ৩১ আগষ্ট দিনাজপুর-সৈয়দপুর মহাসড়কে সৈয়দপুর থেকে আসা গেটলক গাড়ি ঘাটেরপাড় ব্রীজের সামনে আসলে একটি মালবাহী চার্জার ভ্যানকে ধাক্কা দিলে তা ধুমড়ে মুচড়ে যায়। ভ্যান চালক হাসিনুর জানায়, আল­হর রহমতে আমিতো বেচেঁ গেছি কিন্তু আমার ভ্যানটি অকেচো হয়ে গেছে । সুদে লোন করে আমি ভ্যান সাজিয়ে ছিলাম তাই এখন আমার সংসার চালানো অসম্ভব হয়ে গেছে।

এছাড়া, গত ৩০ আগষ্ট মঙ্গলবার দিনাজপুর টু ঢাকা যেতে আলম এন্টারপ্রাইজ গাড়িটি চিরিরবন্দরের ভুষিরবন্দরে নিয়নত্রন হারিয়ে খাদে পরে গেলে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়, এ ঘটনায় অর্ধশতাধিক আহত হয়।

প্রতিনিয়তই ঘটছে ২/৩ টা সড়ক দূর্ঘটনা মহাসড়কের উপরে। বেশীর ভাগ দূর্ঘটনা হচ্ছে প্রতিনিয়ত উপজেলার গ্রামীণ শহর রাণীরবন্দর-ভূষিরবন্দর পর্যন্ত। দূর্ঘটনা থেকে কেউ বেচেঁ যাচ্ছে, কেউ আবার মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে। কেউ বেঁচে যাওয়ার পরে বলে এই বেচে থাকা বাঁচা নয়। দু’ চার মাস আগের কথা মোটর সাইকেল আরোহী মো. জাহাঙ্গীর আলম(২৫) দিনাজপুর থেকে বাড়ি ফেরার পথে নিজের বাম হাতটা একেবারেই অকেজে হয়ে গছে। সে বলে আমার হাত থাকার পরেও আমি কোন কাজ কর্ম করতে পারি না।

উপজেলার রাণীরবন্দর বাজারসহ সড়ক দূর্ঘটনা থেকে মুক্তি চায় সাধারন জনগন। সুখী সুন্দর জীবন গড়তে, ঝুকিপূর্ণ সড়ক দূর্ঘটনা থেকে মুক্তি চাই। প্রতিনিতই সাধারন মানুষসহ স্কুল শিক্ষার্থীরা ঝুঁকিপূর্ণভাবে রাস্তা পারাপার হচ্ছে। স্কুল শিক্ষাথী সহ সাধারন মানুষকে কী দেখার মতে কেউ নেই। আমরা সড়ক দূর্ঘটনা থেকে মুক্তি চাই। তাই সংশি­ষ্ট সচেতন মহলের দাবী সড়ক দূর্ঘটনা রোধে চালকের প্রশিক্ষন প্রয়োজন।