Pages

Categories

Search

আজ- রবিবার ১৮ নভেম্বর ২০১৮

গোবিন্দগঞ্জে টেন্ডার ছাড়াই অবৈধভাবে ৩ কোটি টাকার গাছ বিক্রির অভিযোগ

এপ্রিল ৫, ২০১৬
অনিয়ম, গাইবান্ধা, দূনীতি
No Comment

Gobindagonj_Photo[1]

গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি:
শাহ আলম সরকার সাজু ,গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কামদিয়া ও কামারদহ ইউনিয়নের ২১টি রাস্তায় রোপন করা সামাজিক বনায়ন বিভাগের ৩ কোটি টাকার গাছ সরকারী নিয়ম-নীতি উপেক্ষা করে টেন্ডার ছাড়াই কর্তন করে বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে। একটি প্রভাবশালী চক্র দীর্ঘদিন থেকে এ অবৈধ কর্মকান্ডে সাথে জড়িত থাকলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা না নেয়ায় কিছুতেই থামছে না এসব গাছ কাটা। এ নিয়ে জনমনে নানান প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে।
জানা গেছে, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কামদিয়া ইউনিয়নের সম্প্রতি কনা টিকর ও তেঘড়া রাস্তার ২ কিঃ মিঃ এবং গত ৬ মাসের ব্যবধানে বেশাইন রাস্তার ১ কিঃ মিঃ, চালিতা রাস্তার ২ কিঃ মিঃ, তুলট-শ্যামপুর রাস্তার ২ কিঃ মিঃ, দিঘির হাট-চকমানিকপুর রাস্তার ১ কিঃ মিঃ ও কামদিয়া- তেরইল রাস্তার ১ কিঃ মিঃ, কামদিয়া- রঘুনাথপুর রাস্তার ১ কিঃ মিঃ ও দিঘীর হাট- তেঘড়া মোড় থেকে খোলাহাটি পর্যন্ত রাস্তার ১কিঃ মিঃ সহ আরো অন্যান্য এলাকায় সামাজিক বনায়নের আওতায় প্রায় দেড় যুগ আগে ইউক্লিপটার্স সহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগানো হয়। গত প্রায় ৬ মাস ধরে টেন্ডার ছাড়াই একটি চিহ্নিত প্রভাবশালী চক্রের ছত্রছায়ায় এক শ্রেনীর অসাধু ব্যক্তি দিনে-দুপুরে এসব রাস্তার গাছ কাটার মহোৎসব চালাচ্ছে। কর্তন করা এসব গাছের মূল্য প্রায় ৩ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলে স্থানীয় ক্রেতারা জানান। কামদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা মুফিকুর রহমার উজ্জল চৌধুরীর নেতৃত্বে এসব গাছ কাটছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
অপর দিকে, কামারদহ ইউনিয়নের উল্লেখযোগ্য রাস্তা গুলোহলো- চমরগাছা ১কিঃ মিঃ, মহানগর ১কিঃ মিঃ, মাজার রাস্তা থেকে সরকার বাড়ী পর্যন্ত ১ কিঃ মিঃ ও কামারদহ- বেতগাড়া ১কিঃমিঃ এলাকায় সামাজিক বনায়নের আওতায় প্রায় দেড় যুগ আগে ইউক্লিপটার্স সহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগানো হয়। ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা শরিফুল ইসলাম রতন দিনে-দুপুরে এসব রাস্তার গাছ কাটার মহোৎসব চালাচ্ছে। অবৈধ ভাবে প্রকাশ্যে এসব গাছ কাটা অব্যাহত থাকলেও তা যেন দেখার কেউ নেই। নিয়মানুসারে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পরিপক্ক গাছ বিক্রির জন্য টেন্ডার আহবান করবেন। কিন্তু সরকারী এই নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান উপজেলা প্রশাসনকে ম্যানেজ করে এসব গাছ কাটছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে করে, একদিকে যেমন পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে- অন্যদিকে সরকার এ খাত থেকে লক্ষ লক্ষ টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে। এ বিষয়ে কামারদহ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রতনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোন কথা বলতে রাজি হননি। কামদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোশাহেদ হোসেন বাবলু চৌধুরীর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি অসহায় গাছকাটার বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারব না। গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল হান্নানের সঙ্গে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এসব রাস্তার গাছ বিক্রির কোন অনুমোদন নেই- গাছ কাটার বিষয়টি সরেজমিনে তদন্ত করার জন্য উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আহম্মদ আলীকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। সরকারী নিয়মনীতি ছাড়া বিনা টেন্ডারে অবৈধ ভাবে এসব গাছ কাটা ও বিক্রির সাথে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করে গাছ কাটা বন্ধ করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকার সচেতন মহল।