Pages

Categories

Search

আজ- রবিবার ২৬ মে ২০১৯

গাজীপুরে পোশাক শ্রমিকদের দিনভর সড়ক অবরোধ

গাজীপুর দর্পণ রিপোর্ট : গাজীপুরের ইন্ট্রামেক্স পোশাক কারখানার শ্রমিকেরা বকেয়া বেতনের দাবিতে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দিনব্যাপি ঢাকা-গাজীপুর সড়কের তিনসড়ক এলাকার অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ করে রাখে। এতে ওই সড়কের চান্দনা চৌরাস্তা শিববাড়ি অংশে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। সন্ধ্যায় পুলিশ ধাওয়া দিয়ে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিলে যানবাহন চলাচল শুরু হয়।

পুলিশ, শ্রমিক, ও স্থানীয়রা জানান, ইন্ট্রামেক্স গ্রæপ এ কারখানায় প্রায় সাড়ে ৪হাজার শ্রমিক-কর্মকর্তা কর্মচারী রয়েছে। এদের মধ্যে শ্রমিকদের গত তিন মাসের বেতন বকেয়া। শ্রমিকরা বকেয়া পাওনাদি পরিশোধের জন্য বেশ কিছুদিন ধরে কারখানা কর্তৃপক্ষের কাছে দাবী জানিয়ে আসছিল। কর্তৃপক্ষ বকেয়া বেতন পরিশোধের বেশ কয়েক দফা তারিখ দিলেও তা পরিশোধ করেনি। সর্বশেষ বেতন পরিশোধের তারিখ নির্ধারণ ছিল গত বুধবার। ওইদিন শ্রমিকরা পাওনাদির জন্য দিনভর অপেক্ষা করে চলে যায়। বৃহষ্পতিবার সকালে কারখানা এসে ফটকে তালা ও বন্ধের নোটিশ দেখতে পেয়ে শ্রমিকরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে সকাল ৮টার দিকে তারা কারখানার পার্শ্ববর্তী ঢাকা-গাজীপুর সড়কের তিনসড়ক এলাকার অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকে। এতে ওই সড়কে সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সড়কের উভয় পাশে যানবাহন আটকা পড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়। স্কুল-কলেজ, অফিস-আদালতগামীসহ সাধারণ মানুষ ভোগান্তিতে পড়ে। এসময় অনেক হেটে বা বিকল্প পথে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে আন্দোলনরতদের বুঝিয়ে শান্ত করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা চালায়। কিন্তু শ্রমিকরা সন্ধ্যা পর্যন্ত তাদের বিক্ষোভ ও অবরোধ কর্মসূচি অব্যাহত রাখে। পরে সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে পুলিশ ধাওয়া করে দিয়ে আন্দোলনর শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিলে যানবাহন চলাচল শুরু হয়।
কারখানা শ্রমিক সাদ্দাম ও ্িবপ্লব হোসেন জানান, শ্রমিকদের গত তিন মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে। কতৃপক্ষ শ্রমিকদের বকেয়া বেতন পরিশোধের কয়েক দফা আশ^াস দিলেও তা রক্ষা করেনি। সর্বশেষ ২০ মার্চ বুধবার বেতন পরিশোধের নির্ধারিত দিন ছিল। ওই দিন কর্মকর্তারা কারখানায় আসেননি এবং বেতনও পরিশোধ করেনি। কর্তৃপক্ষ বেতন পরিশোধ না করেই বৃহস্পতিবার কারখানা বন্ধ ঘোষণা করে গেইটে তালা ও নোটিশ টানিয়ে দেয়। বৃহষ্পতিবার সকালে শ্রমিকরা পাওনাদি নিতে এসে গেইটে তালা ও বন্ধের নোটিশ দেখে বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠে।

গাজীপুর শিল্পাঞ্চল পুলিশ-২-এর সিনিয়র এএসপি মো. মকবুল হোসেন সাংবাদিকদের জানান, বকেয়া বেতনের ব্যাপারে মালিকের সঙ্গে কথা হয়েছে। মালিক জানিয়েছেন, অর্থ সংকটের কারণে তিনি বকেয়া পরিশোধ করতে পারছেন না। অর্থ সংস্থানের সম্ভাবনার কারণেই কয়েকবার বেতন দেয়ার আশ^াস দেয়া হয়েছিল। কিন্তু কর্তৃপক্ষ কারখানার শ্রমিক-কর্মচারীদের পাওনাদি পরিশোধের ব্যবস্থা করতে না পেরে বৃহস্পতিবার কারখানাটি বন্ধ ঘোষণা করে নোটিশ টানিয়ে দেয়। এতে শ্রমিকদের মাঝে অসন্তোষ দেখা দেয়। শ্রমিকরা পাওনাদি পরিশোধের দাবীতে বৃহষ্পতিবার সকাল হতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকে। সন্ধ্যা পর্যন্ত তারা সড়কে অবস্থান নিয়ে অবরোধ করে রাখে। এক পর্যায়ে সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে ধাওয়া দিয়ে আন্দোলনরতদের ছত্রভঙ্গ করে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে ওই সড়কে পুনঃরায় যানবাহন চলাচল শুরু হয়।