Pages

Categories

Search

আজ- বুধবার ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮

গাজীপুরে পাঁচ আসনে ৩৯ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ


গাজীপুর দর্পণ রিপোর্ট : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গাজীপুরের ৫টি সংসদীয় আসনে ৪৯ জন প্রতিদ্ব›দ্বী প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। রোববার ভাওয়াল সন্মেলন কক্ষে রির্টানিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর যাচাই বাছাই শেষে গাজীপুর-১ আসনে ১৪ জনের মধ্যে তিনজন প্রার্থীর, গাজীপুর-২ আসনে ৯ জনের মধ্যে দুই জনের, গাজীপুর-৩ আসনে ১০ জনের মধ্যে দুই জনের, গাজীপুর-৪ আসনে ৯ জনের মধ্যে দুই জনের এবং গাজীপুর-৫ আসনে ৭ জনের মধ্যে একজন প্রার্থীতা বাতিল করেন। জেলার পাঁচটি নির্বাচনী আসনে ৩৯প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেন রির্টানিং কর্মকর্তা। তবে উল্লেখযোগ্য কোন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়নি।
গাজীপুর- ১ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন ১৪ জন প্রার্থী। তাদের মধ্য থেকে যাচাই বাছাইয়ে তিনজন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বালিত করেছেন রির্টানিং কর্মকর্তা। যাচাই-বাছাইয়ে বৈধ প্রার্থীরা হলেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আ.ক.ম. মোজাম্মেল হক (আওয়ামী লীগ), সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী তানবীর আহমেদ সিদ্দিকী (বিএনপি), আবুল বাশার (ইসলামিক আন্দোলন বাংলাদেশ), আব্দুল মজিদ (বাংলাদেশের ওয়ার্কাস পার্টি), আরিফুল ইসলাম (বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট), আতিক মাহমুদ (গণফ্রন্ট) , মোঃ হাসান উদ্দিন (তরীকত ফেডারেশন), মোহাম্মদ রাহাত আহম্মেদ (বাসদ), মোঃ শরীফুল ইসলাম (জাতীয় পার্টি), মোঃ রফিকুল ইসলাম (গণফোরাম), চৌধুরী তানভির আহমদ সিদ্দিকর ছেলে চৌধুরি ইশরাক আহমদ সিদ্দিকী (বিএনপি)।
গাজীপুর ২ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন ৯জন প্রার্থী। তাদের মধ্য থেকে যাচাই বাছাইয়ে দুইজন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বালিত করেছেন রির্টানিং কর্মকর্তা। যাচাই-বাছাইয়ে বৈধ প্রার্থীরা হলেন সংসদ সদস্য মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল (আওয়ামী লীগ), সাবেক মন্ত্রী ও সাবেক মেয়র অধ্যাপক মান্নান পুত্র এম মঞ্জুরুল করিম রনি (বিএনপি), শ্রমিক দলের কেন্দ্রীয় নেতা মোঃ সালাহউদ্দিন সরকার (বিএনপি), হারুন অর রশিদ (ইসলামিক আন্দোলন বাংলাদেশ), মোঃ জিয়াউল কবীর (বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি), সৈয়দ মোহাম্মদ আব্দুল হান্নান নূর (মুসলিম লীগ), মো: আব্দুল কাইয়ুম বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল(জাসদ)।
গাজীপুর-৩ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন ১০ জন প্রার্থী। তাদের মধ্য থেকে যাচাই বাছাইয়ে দুইজন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বালিত করেছেন রির্টানিং কর্মকর্তা। যাচাই-বাছাইয়ে বৈধ প্রার্থীরা হলেন- জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ ইকবাল হোসেন সবুজ (আওয়ামী লীগ), বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা এস. এম. রফিকুল ইসলাম (বিএনপি) কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের কেন্দ্রীয় নেতা ইকবাল সিদ্দিকী (কৃষক শ্রমিক জনতালীগ), রহমত উল্লাহ (ইসলামিক আন্দোলন বাংলাদেশ), নাসির উদ্দিন (জাকের পার্টি), রফিকুল ইসলাম (বাংলাদেশ তরীকত ফেডারেশন), আফতাব উদ্দিন আহমেদ( জাতীয় পার্টি), এস এম মফিজ উদ্দিন আহমদ ( বাসদ)।
গাজীপুর-৪ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন ৯জন প্রার্থী। তাদের মধ্য থেকে বাছাইয়ে দুইজন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বালিত করেছেন রির্টানিং কর্মকর্তা। যাচাই-বাছাইয়ে বৈধ প্রার্খীরা হলেন- বঙ্গতাজ তাজ উদ্দীন আহমদ কন্যা সংসদ সদস্য সিমিন হোসেন (রিমি) (আওয়ামী লীগ), সাবেক মন্ত্রী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ’র ছেলে শাহ রিয়াজুল হান্নান (বিএনপি), নূরুল ইসলাম সরকার (ইসলামিক আন্দোলন বাংলাদেশ), জুয়েল কবির (জাকের পার্টি), মোহাম্মদ সারোয়ার-ই-কায়নাত (বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট), মানবেন্দ্র দেব (বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি), মোঃ নাজিম উদ্দিন শেখ (জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল)।
গাজীপুর-৫ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন ৭ জন প্রার্থী। তাদের মধ্য থেকে বাছাইয়ে দুইজন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বালিত করেছেন রির্টানিং কর্মকর্তা। যাচাই-বাছাইয়ে বৈধ প্রার্খীরা হলেন- শহীদ ময়েজ উদ্দীন আহমদ কন্যা প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি (আওয়ামী লীগ), জেলা বিএনপি সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এ.কে.এম. ফজলুল হক মিলন (বিএনপি), রাহেলা পারভীন শিশির (জাতীয় পার্টি), গাজী আতাউর রহমান ( ইসলামিক আন্দোলন বাংলাদেশ), মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম মাহমুদ (জাকের পার্টি), মোঃ আল আমিন দেওয়ান (ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ)।