Pages

Categories

Search

আজ- বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

গাজীপুরে নয় জঙ্গীসহ পৃথক অভিযানে দেশে ১১ জঙ্গী নিহত- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

dsc062781 received_
গাজীপুর দর্পণ রিপোর্ট : গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নোয়াগাও পাতারটেক এলাকায় অভিযানে সাত জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে পুলিশের এক অফিসার। এর আগে সকালে হাড়িনাল এলাকায় দুই জঙ্গী নিহত হয়।

শনিবার দিনব্যাপি কাউন্টার টেররিজম, সোয়াত ও গাজীপুর পুলিশের যৌথ অভিযানে চলাকালে বিকেলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এক প্রেস বিফিংয়ে এ তথ্য জানান।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিকেল পৌনে ৪টার দিকে ঘটনাস্থলে আসেন। পরে তিনি এক প্রেসবিফিংয়ে বলেন, কাউন্টার টেররিজম, সোয়াত ও গাজীপুর পুলিশসহ এই সফল অভিযানটি পরিচালনা করে আমরা নিশ্চিত তামিম চৌধুরীর পরে যে জঙ্গীদের নেতৃত্ব দিত তার ছদ্ম হউক আর টাইটেল নাম হউক তার নাম ছিল আকাশ। সে এখানে নিহত হয়েছে। নিহত এই সাত জনের মধ্যে সে এক জন।

তিনি বলেন, আমাদের পুলিশ বাহিনী ও গোয়েন্দা বাহিনীর তৎপরতায় আমারা জঙ্গী, সন্ত্রাস আমার কন্ট্রোলে নিয়ে আসছি। সেই কারনে মনেকরি আমাদের যথার্থ কাজটি আমাদের পুলিশ যথার্থভাবেই তাদের দায়িত্ব পালন করছে। একের পর এক জঙ্গী আস্তানা আমরা গুড়িয়ে দিচ্ছি। আজকে সাত জন জঙ্গী এখানে অবস্থান করছিল, সঠিক তথ্য ভিত্তিক আমাদের পুলিশ বাহিনী তাদেরকে আত্মসমর্পন করার জন্য অনুরোধ কাে নির্দেশ দেয়। তারা আত্মসমর্পন না করে উপর্যুপরি গুল বর্ষণ শুরু করে। শুধু গুলিবর্ষণই করেই ক্ষান্ত হয়নি তারা গ্রেনেড নিক্ষেপ শুরু করে। আমদের পুলিশ বাহিনী, সোয়াত বাহিনী, কাউন্টার টেররিজম জেলা পুলিশ পুলিশ হেড কোয়াটার যৌথভাবে তারা চরম ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে। এই গোলাগুলির মধ্যেও তাদের বারবার বলার পরও তারা আত্মসমর্পন করেনি। আত্মসমর্পন না করাতে আমদের যৌথবাহিনী এই আক্রমনটি পরিচালনা করে। এখানে আমার এ পর্যন্ত সাতটি মৃত দেহ পেয়েছি। ৩টি অস্ত্র, একটি গ্যাস সিলিন্ডর, বেশ কিছু চাপাতি পেয়েছি। এ অপারেশনে একজন পুলিশ অফিসার আহত হয়েছেন। হাতে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন তিনি। তাকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। ১৩/১৪টি গ্রেনেড বিস্ফোরেনের দৃশ্য আম দের পুলিশ বাহিনী প্রত্যক্ষ করেছে। তাদের জীবন বাজি রেখে প্রত্যেকবার আমাদের পুলিশ বাহিনী দেশের জন্য-দেশের মায়ায় সর্বশক্তি প্রয়োগ করছে। আজকের একটা সফল অভিযানের মাধ্যমে সেটা প্রমান করেছে। এ অভিযানে সোয়াত টিমের এক সদস্য গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন কিন্ত তার লাইফ জ্যাকেট থাকাতে তিনি তেমন আহত হন নি।

তিনি আরো বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রীর ডাকে সারা দেশের মানুষ জঙ্গীদের বিরুদ্ধে, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে এক হয়েছে। এখানেও তার প্রমান মিলেছে। এলাকাবাসি আমাদের পুলিশ বাহিনীকে যথেষ্ট সাহযোগিতা করেছে। সে জন্যও এ অভিযান সফল হয়েছে।
তিনি বলেন, এ পর্যায়ে দেখা যাচ্ছিল জঙ্গীরা গ্যাস সিলিন্ডার দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়ার প্রচেষ্টা চালাচ্ছিল। ফায়ার সার্ভিসও যথা সময়ে এসে তাদের দায়িত্ব পালন করেছে।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা সব সময় বলে আসছি আমরা শতভাগ নির্মুল করতে পারি নি। ২/৪ জন হয়ত এদিক সেদিক রয়ে গেছে। যারা এদিক সেদিক ছিল তারাও কিন্ত সঙ্গবদ্ধ হওয়ার একটা প্রচেষ্টা নিচ্ছিল এই আকাশের নেতৃত্বে। এটা আমাদের ধারণা ছিল। আজকে আরো কয়েকটি সফল অভিযান হয়েছে। গাজীপুরে আরেকটা অভিযানে দুইজন এবং টাঙ্গাইলে আরো দুইজন এ রকমভাবেই নিহত হয়েছে।