Pages

Categories

Search

আজ- মঙ্গলবার ২০ নভেম্বর ২০১৮

গাজীপুরে ধর্ষণে মামলায় ধর্ষক আটক

গাজীপুর দর্পণ রিপোর্ট : গাজীপুর মহানগরের গজারীয়া পাড়া এলাকায় এক নারীকে জোরপূর্বক ধর্ষণের ঘটনায় লম্পট আরিফুল ইসলাম আরিফকে(৪৫) আটক করেছে পুলিশ। বুধবার দিবাগত রাত ( বৃহস্পতিবার রাত আড়াইর সময় ) ঘরে ঢুকে জোড়করে ধর্ষন করে ওই নারীকে। ওই নারীর ডাক-চিৎকারে এলাকাবাসি এগিয়ে এসে লম্পট আরিফকে আটক করলে লস্পট আরিফের ভাই সহযোগীদের নিয়ে জোর করে ছিনিয়ে নেয় ধর্ষক আরিফকে। লম্পট ধর্ষক বৃহস্পতিবার ধর্ষিতা ও তার প্রতিবেশীদের বিরুদ্ধে উল্টো মারধরের অভিযোগে জয়দেবপুর থানায় মামলা করতে এসে আটক হয়। ধর্ষিতা বাদী হয়ে মামলা দিলে পুলিশ ধর্ষকে আটক করে।
এলাকাবাসি ও পুলিশ জানায়, গাজীপুর মহানগরের গজারীয়া পাড়া এলাকায় বসবাসকারী আরিফুল ইসলাম আরিফ গরীব ওই নারীর শয়ন কক্ষের টিনের দরজা ফাঁকা করে প্রবেশ করে এবং জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ওই নারী জয়দেবপুর থানায় অভিযোগ দিতে আসলে লম্পট আরিফ ও তার ভাই শামীম থানার ডিউটি অফিসারের সামনে ধর্ষণের শিকার নারীর প্রতিবেশী হুমায়ুন কবিরকে পিটিয়ে আহত করে এবং আটকে রাখে। পরে হুমায়ুন কবির কে পুলিশ ছেড়ে দেয়।
জয়দেবপুর থানার ডিউটি অফিসার উপ পরিদর্শক জালাল মিয়া জানান, ধর্ষনের শিকার ওই নারীর অভিযোগের ভিত্তিতে লম্পট আরিফের বিরুদ্ধে জয়দেপুর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ভিকটিমকে ডাক্তারী পরীক্ষা করানো হয়েছে। থানার ভেতর দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি হয়েছে বলে ডিউটি অফিসার স্বীকার করেছেন।
ধর্ষণের শিকার ওই নারী জানান, ধর্ষক আরিফের ভাই পুলিশ সদস্য শামীম ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় কর্মরত। বিচার চাইতে আসলে ধর্ষক আরিফের ভাই পুলিশ সদস্য শামীম জয়দেবপুর থানার ডিউটি অফিসারের সামনে হুমায়ুন কবিরকে মারধর করে। আমি বিচার চাই।
স্থানিয় বাসিন্দা সাইফুল ইসলাম জানান, ধর্ষক আরিফ রাজেন্দ্রপুর এলাকার প্যানাশ সোয়েটার কারখানায় কাজ করে। ধর্ষণের ঘটনায় রাতে তাকে এলাকাবাসী আটক করেছিল বলে শুনেছি। পরে তাকে জোরকরে ছাড়িয়ে নেয় তার ভাই শামীম। এঘটনার বিচার হওয়া দরকার।