Pages

Categories

Search

আজ- মঙ্গলবার ২০ নভেম্বর ২০১৮

গাজীপুরে ডুয়েট শিক্ষার্থীকে মারধর করে চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেয়ায় সড়ক অবরোধ, বিক্ষোভ ও ভাংচুর

?

মুহাম্মদ মিজানুর রহমান মিলন: গাজীপুরে ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (ডুয়েট) এক শিক্ষার্থীকে বাসের শ্রমিকরা মারধর করে চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেয়ার ঘটনার প্রতিবাদে সোমবার ডুয়েটের শিক্ষার্থীরা জয়দেবপুর-শিমুলতলী সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ করেছে। এসময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা কয়েকটি বাসের কাঁচ ভাংচুর করেছে।

ডুয়েটের ইইই বিভাগের ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী মো: সাদ্দাম হোসেনসহ বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা জানান, গাজীপুরস্থিত ডুয়েটের সিভিল বিভাগের ৩য় বর্ষের ছাত্র মো: রাজন বলাকা পরিবহনে করে গত রবিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে গাজীপুরের চান্দনা চৌরাস্তা থেকে জয়দেবপুরের দিকে আসছিলেন। এসময় ওই বাসের সুপারভাইজার তার কাছে ৫টাকার স্থলে ১৫ টাকা ভাড়া দাবি করে। এসময় সে নিজেকে ছাত্র পরিচয় দিলে বাসের সুপারভাইজার তার সঙ্গে খারাপ আচরণ করলে উভয়ের মাঝে বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে ওই ছাত্র রাজনকে বলাকা পরিবহনের সুপারভাইজার বেধড়ক মারধর করে এবং কৃষি গবেষণার সামনে চলন্ত গাড়ি থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। পরে সংবাদ পেয়ে অন্য শিক্ষার্থীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আহত রাজনকে উদ্ধার করে চিকিৎসা দেয় এবং রাতেই তারা জয়দেবপুর বাস টার্মিনালে গিয়ে এ ঘটনার বিচার দাবি করে। কিন্তু সোমবার সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত বলাকা পরিবহনের মালিক অথবা শ্রমিক পক্ষের কেউ তাদের সঙ্গে যোগাযোগ না করায় ডুয়েট ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের মাঝে অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ শুরু করে এবং ডুয়েট ক্যাম্পাসের সামনে জয়দেবপুর-শিমুলতলী সড়ক অবরোধ করে। এসময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা কয়েকটি বাসের কাঁচ ভাংচুর করে। খবর পেয়ে জয়দেবপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে শিক্ষার্থীদের বুঝিয়ে এবং ঘটনার বিচারের আশ্বাস দিলে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা সড়কের অবরোধ তুলে নেয়। পরে বেলা দেড়টার দিকে ওই সড়কে যানবাহন চলাচল শুরু হয়।

জয়দেবপুর থানার ওসি মোঃ আমিনুল ইসলাম এ ব্যাপারে জানান, শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ছাত্রদের সঙ্গে কথা বলে পরিস্থিতি শান্ত করে। পরে ডুয়েট’র শিক্ষার্থী এবং বলাকা বাস মালিক সমিতির প্রতিনিধিদের নিয়ে আলোচনা হয়। আগামি বৃহস্পতিবার সকালে বিষয়টি আবার আলোচনা করে সুষ্ঠু সমাধান করার আশ্বাস দেয়া হলে বেলা দেড়টার দিকে ওই সড়কে যানবাহন চলাচল শুরু হয়।