Pages

Categories

Search

আজ- বৃহস্পতিবার ১৫ নভেম্বর ২০১৮

খালেদা জিয়ার রায়ে বিএনপির অভ্যন্তরীণ সঙ্কট ঘনীভূত হবে- ওবায়দুল কাদের

ফেব্রুয়ারি ৯, ২০১৮
গাজীপুর, জাতীয়, রাজনীতি, শীর্ষ সংবাদ
No Comment

গাজীপুর দর্পণ রিপোর্ট : খালেদা জিয়ার রায়ের মাধ্যমে দেশে রাজনৈতিক সংকট আরো ঘনীভূত হল বিএনপি নেতাদের এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এই রায়ের মধ্য দিয়ে রাজনৈতিক সংকট ঘনীভূত হল না বরং বিএনপির অভ্যন্তরীণ সঙ্কট ঘনীভূত হবে। সেটার লক্ষণ আমরা টের পাচ্ছি।
তিনি শুক্রবার সকালে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভোগড়া বাইপাসে বিআরটিএ প্রকল্প ও চোরলেন প্রকল্পের কাজ পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, আজকে বেগম জিয়ার অনুপন্থিতিতে কাকে দায়িত্ব দেয়া হল? যার আগে ৭ বছর দন্ড হয়েছে। তিনি দন্ডিত ব্যাক্তি। অপরাধী হিসেবে দন্ডিত মানিং লন্ডরিংয়ের জন্য। আর এই মামলায় জরিমানাসহ ১০ বছরের সশ্রম কারদন্ড হয়েছে। বিএনপি ৭ ধারাটা কেন তুলে দিয়েছে গঠনতন্ত্র থেকে? এখনতো পরিস্কার। দুনীতিবাজ তাদের নেতা হতে কোন বাধা নেই। বেগম জিয়া তার অনুপস্থিতিতে যাকে দায়িত্ব দিলেন তিনি দুর্নীতির অভিযোগে দন্ডিত।


তিনি আরো বলেন, এই রায় ঘোষণার আগে তড়িঘড়ি রাতের অন্ধকারে তারা তাদের বিএনপির গঠণতন্তের ৭ ধারা বিসর্জন দিলো, নির্বাসনে পাঠালো। এখন ৭ ধারা চলে যাওয়াতে দুর্নীতিপরায়ণের বিএনপির নেতা হতে আর কোন অসুবিধা নেই। যে কোন দুর্নীতিবাজ বিএনপির নেতা হতে পারে। এবং তারা ৭ ধারা তুলে দিয়ে সে স্বীকৃতি দিয়েছে। তার বড় প্রমাণ সর্বশেষ তারেক রহমানকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন করা।
মন্ত্রী বলেন, এই মামলাতো সরকার করেনি, সরকারের কোন হস্তক্ষেপও নেই। বেগম জিয়া যদি নিয়মিত হাজিরা দিতেন। এ মামলার অনেক আগেই রায় হয়ে যেত। এখন তিনি নিজেই দেরী করে নির্বাচনকে সামনে রেখে এই পর্যন্ত নিয়ে এসেছেন। এটার জন্যতো বিএনপি দায়ী, এটার জন্য বেগম জিয়া ও তার বিজ্ঞ আইনজীবীরা দায়ী।
এসময় মন্ত্রী সঙ্গে ঢাকা বিভাগীয় তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সবুজ উদ্দিন খান, গাজীপুর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ, গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমত উল্লা খান, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় নেতা আফজাল হোসেন সরকার(ভিপি রিপন), গাজীপুর সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলী ডিএকেএন নাহিন রেজাসহ সড়ক ও জনপথের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।