Pages

Categories

Search

আজ- বুধবার ১৪ নভেম্বর ২০১৮

কালীগঞ্জে হা-মীম গ্রুপের গার্মেন্টসরা শ্রমিক আবারো অসুস্থ্য, কারখানা ছুটি ঘোষণা

সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৭
কালীগঞ্জ, পোষাক অর্থনীতি
No Comment

কালিগঞ্জ প্রতিনিধি : জেলার কালীগঞ্জে হা-মীম গ্রুপের রিফাত গার্মেন্টসে আবারো শ্রমিক অসুস্থ্য হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। বুধবার সকালে কারখানা কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের সাথে মিটিং করা অবস্থায় তারা অসুস্থ্য হতে থাকেন। পরে মিটিং শেষ না করেই অন্য শ্রমিকরা কারখানা ত্যাগ করেন। অবস্থা দেখে কর্তৃপক্ষ আবারো কারখানা ছুটি ঘোষণা করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কারখানার একাধীক পোষাক শ্রমিক জানান, বুধবার সকালে যথারীতি কারখানায় যান শ্রমিকরা। গিয়ে দেখেন সবকটি বিভাগে তালা ঝুলছে। পরে কর্তৃপক্ষ পোষাক শ্রমিকদের ওই কারখানার সুইং সেকশনের সামনে একত্রিত করেন। এ সময় কারখানার পক্ষে হা-মীম গ্রুপের কনসালটেন্ট একেএম মাহফুজুল হক গত দুইদিনের ঘটনা বিশ্লেষন করেন। এ সময় তিনি কারখানায় একটি এ্যাম্বুলেন্সের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছেন বলে জানান এবং আবেদনের কপি দেখান। এ সময় উপস্থিত পোষাক শ্রমিকরা কারখানার ইডি মেজর (অব.) মো. মনিরুজ্জামান ও কারখানার নিজস্ব হাসপতালের নার্সের গাফিলতিতে সুপারভাইজারের মৃত্যুর কারণ দেখিয়ে তাদের অপসারণ দাবি করেন। পাশাপাশি তারা শুক্রবার পর্যন্ত কারখানা ছুটি ঘোষণার আবেদন করেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ কোন সিদ্ধান্ত না জানিয়ে পরে জানানো হবে বলে জানান। এ সময় প্রায় ৭/৮ জন পোষাক শ্রমিক অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। তারা কেউ ফিট হয়ে যান এবং বমি করতে থাকেন। পরে মিটিং শেষ না করেই উপস্থিত শ্রমিকরা কারখানা ত্যাগ করেন। অসুস্থ্য পোষাক শ্রমিকদের কাউকে কারখানার অভ্যন্তরে অবস্থিত নিজস্ব হাসপাতালের পাঠানো হয়। আবার কেউ কেউ অন্যত্র চলে যায়।

শ্রমিকরা ক্ষোভ প্রকাশ করে আরো জানায়, কারখানায এত বড় ঘটনা ঘটলো অথচ তারা কোন ছুটিই ঘোষনা করেনি। বরং দূর দূড়ান্ত থেকে শ্রমিকরা এসে দেখে প্রতিটি সেকশনে তালাবদ্ধ। কিন্তু শ্রমিকরা আবারও অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তারা তড়িগড়ি করে কারখানা ছুটির নোটিশ দেন।

এ ব্যাপারে হা-মীম গ্রুপ কালীগঞ্জ ইন্ড্রাস্টিয়াল পার্কের ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) মোবারক হোসেন শামীম জানান, আজকে নতুন কেউ অসুস্থ্য হয়নি। গতদিন যারা অসুস্থ্য হয়েছিল তাদের মধ্যে কেউ কেউ অসুস্থ্য হলে তাদেরকে কারখানার নিজস্ব হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়ী পাঠিয়েছেন। পোষাক শ্রমিকদের শুক্রবার পর্যন্ত ছুটির আবেদনের এক প্রশ্নের জাবাবে তিনি জানান, এটা তারা সিদ্ধান্ত দিতে পারবেননা। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। তারা সিদ্ধান্ত দিলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর ছুটির ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত হয় কিনা সে ব্যাপারে শ্রমিকদের তাদের লাইন সুপারভাইজারদের সাথে যোগাযোগ রাখতে বলেন তিনি।

উল্লেখ্য, এর আগে গত সোমবার বিকেলে ওই পোষাক কারখানায় হৃদযন্ত্রের ক্রীয়া বন্ধ হয়ে এক সুপারভাইজারের মুত্যু হয়। এ ঘটনায় মঙ্গলবার সকালে সহকর্মীর মৃত্যু সংবাদে শ্রমিকদের মাঝে উত্তেজনা দেখা দেয়। এতে শতাধীক শ্রমিক হঠাৎ করে অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। আসুস্থ্যদের কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। এ রোগীর স্বজনরা হড্ডগোল সৃষ্টি করলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার খন্দকার মু. মুশফিকুর রহমান, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. সোহাগ হোসেন, থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আলম চাঁদ, মেয়র মো. লুৎফুর রহমান, কাউন্সিলর পরিমল চন্দ্র ঘোষ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন এবং রোগীদের সঠিক চিকিৎসার ব্যাপারে স্বজনদের আশ্বাস প্রদান করেন। পরে বেশকিছু রোগী সুস্থ্য হয়ে বাড়ী ফিরে যান। অন্যদিকে ওই কারখানায় বিশৃঙ্খলা দেখে দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। পরে কারখানা কর্তৃপক্ষ ওইদিন গার্মেন্টস ছুটি ঘোষণা করেন। ঘটনার পর গাজীপুরের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক জামিল আহমেদ মঙ্গলবার দুপুরে হাসপাতাল এবং হা-মীম গ্রুপের ওই কারখানা পরিদর্শণ করেন। পরে ঘটনা তদন্তের জন্য গাজীপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট (এডিএম) রাহেনুল ইসলামকে প্রধান করে ৪ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।