Pages

Categories

Search

আজ- শনিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৮

এবার না.গঞ্জে পায়ুপথে বাতাস ঢুকিয়ে শিশু হত্যা

জুলাই ২৪, ২০১৬
এক্সক্লুসিভ, নারায়ণগঞ্জ, হত্যা
No Comment

N Gonjনিউজ ডেস্ক:
খুলনার কিশোর মো. রাকির হত্যার পর এবার একই কায়দায় পায়ুপথে বাতাস ঢুকিয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলার যাত্রামোড়া এলাকায় জোবায়দা টেক্সটাইল মিলে সাগর বর্মণ (১০) নামে এক শিশুকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে।

রোববার দুপুরে এই ঘটনা ঘটে। নিহত সাগর নেত্রকোনা জেলার খালিয়াজুড়ি উপজেলার গাজীপুর গ্রামের রতন বর্মনের ছেলে।

নিহত শিশুর বাবা রতন বর্মন জানান, তারা বাবা-ছেলে জোবেদা কারখানাতে চাকরি করেন। রোববার দুপুর দেড়টার দিকে কয়েকজন মহিলা শ্রমিক তাকে এসে জানান, তার ছেলের শরীরে বাতাস ঢুকানো হচ্ছে।

তিনি জানান, এই খবর পেয়ে তিনি সবুজ নামের অপর এক সহকর্মীকে সঙ্গে নিয়ে সেখানে যান। পরে তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকেল সাড়ে ৩টায় কর্তব্যরত চিকিৎসক সাগরকে মৃত ঘোষণা করে।

রতন বর্মণ জানান, তার ছেলে ওই টেক্সটাইল মিলের সুতা সেকশনে কাজ করতো।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ফিরোজ আহমেদ জানান, শিশুটিকে যখন আনা হয় তখন তার পেট অস্বাভাবিকভাবে ফোলা ছিল। পায়ুপথে বাতাস ঢোকানোর কারণে তার মৃত্যু হতে পারে। ময়নাতদন্তের পর বিস্তারিত জানা যাবে।

রূপগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) তানভীর হোসেন জানান, যাত্রামুড়া এলাকাতে জোবায়দা টেক্সটাইল মিলে দুপুরে সাগর বর্মণ নামের এক শিশুর পায়ুপথে বাতাস ঢুকিয়ে হত্যার অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। সাগর বর্মণ জোবায়দা টেক্সটাইল মিলের সুতা সেকশনে কাজ করতো। পরিদর্শন করে কারখানায় শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলছি। এই দিকে এই ঘটনায় নাজমুল হুদা নামের এক জুনিয়র অফিসারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। তবে নিহতের পরিবারের সবাই ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রয়েছে।

ঘটনাটি সম্পর্কে জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জাকারিয়া জানান, শিশু সাগরের পায়ুপথে বাতাস ঢুকিয়ে হত্যার প্রমাণ পাওয়া গেছে। তবে কী কারণে, কে তাকে হত্যা করেছে তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কারখানার পাঁচ শ্রমিক-কর্মচারীকে আটক করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৪ আগস্ট খুলনা নগরীর টুটপাড়া এলাকায় একটি মোটর গ্যারেজে মলদ্বারে পাইপের মাধ্যমে হাওয়া ঢুকিয়ে কিশোর মো. রাকিব হাওলাদারকে হত্যা করা হয়। ওই ঘটনায় দুজনের ফাঁসির রায় হয়েছে।