Pages

Categories

Search

আজ- শনিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৮

একতরফা নির্বাচন না হলে আওয়ামী দুর্গে হানাদিবে বিএনপি

অক্টোবর ১৩, ২০১৩
গাজীপুর, রাজনীতি
No Comment

গাজীপুর দর্পণ রিপোর্ট ঃ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে  অংশ নিতে দুই জোটের নেতারাই প্রস্ততি নিচ্ছেন। আওয়ামী লীগের ঘাঁটি হিসাবে পরিচিত গাজীপুরের ৫টি আসনেই এখন ক্ষমতাসীন দলের এমপি রয়েছে। ৫টি আসনের মধ্যে গাজীপুর-৪ (কাপাসিয়া ) আসনে আওয়ামী লীগ বা বিএনপিতে মনোনয়ন নিয়ে প্রকাশ্যে কোন্দল নেই। গাজীপুর সদর ও কালিঞ্জন আসনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী অনেকটাই নিশ্চিত । তবে অন্য আসন গুলোতে  উভয় দলেই মনোনয়ন  নিয়ে টানাপোড়েন। একতরফা নির্বাচন না হলে দ্বিতীয় গোপালগঞ্জ ক্ষ্যত আওয়ামী দুর্গ গাজীপুরে হানাদিতে পারে বিএনপি। দেশের রাজনৈতিক পেক্ষাপট, উন্নয়ন বঞ্চিত গাজীপুর , সরকারের ব্যার্থতা ও সর্বশেষ গাজীপুর সিটি কর্পোরেমন নির্বাচনে  মেয়র পদে বিজয়ী হওয়ার পর বিএনপি শিবির অনেকটাই আশাবাদী।
কালিয়াকৈর ও সদরের অংশ নিয়ে গাজীপুর – ১ আসন
গাজীপুর -১ ( কালিয়াকৈর উপজেলা ও গাজীপুর মহানগরের কাশিমপুর,কোনাবাড়ী, বাসন )
এলাকা নিয়ে আসনটির বর্তমান এমপি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডঃ আ ক ম মোজাম্মেল হক। আওয়ামী লীগের দখলে থাকা আসনটিতে এবার মনোনয়ন চায় আওয়ামী লীগ নেতা ও কালিয়াকৈর উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল সিকদার। আশানুরূপ উন্নয়ন না হওয়া এবং এমপি’র কাছে মূল্যায়ন না পাওয়ায় স্থানীয় পর্ষায়ের নেতা কর্মীরা এমপি মোজাম্মেল হকের ওপর ক্ষদ্ধ। সম্প্রতি জেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে এমপিদের  কঠোর সমালোচনা করেন নেতা কর্মীরা। তারা পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে মাঠে কাজ করতেও  ভীত। অন্য দিকে এই আসনে ১৮ দলীয় জোটের মনোনয়ন পেতে প্রচারনা চালাচ্ছেন ৮ জন নেতা । জেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক ও কেন্দ্রেীয় নেতা কাজী সাইদুল আলম বাবুল, সাবেক  কাশিমপুর ইউপি চেয়ারম্যান শওকত হোসেন সরকার, সাবেক বাসন ইউপি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন চৌধুরী, বিএনপি কেন্দ্রীয় নেতা হুমায়ন কবির খান, জেলা বিএনপি’র যুগ্ম সম্পাদক সোহরাব উদ্দিন, সদর থানা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক সুরুজ  আহম্মেদ, ডাঃ মাজহারুল আলম ও হেফাজত নেতা মাওলানা ফজলুর রহমান । কে পাবেন ১৮ দলীয় জোটের টিকিট তার ওপর নির্ভর করবে কালিয়াকৈর  আসনের ভোটের মাঠের হিসাব।
টঙ্গী ও জেলা সদরের অংশ নিয়ে গাজীপুর – ২ আসন
গাজীপুর -২ (সদর) আসনে ১৮ দলীয় জোট সমর্থিত বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক এমপি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যন শিক্ষাবন্ধু মুক্তিযোদ্ধা হাসান উদ্দিন সরকার। অন্য দিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বর্তমান এমপি জাহিদ আহসান রাসেল ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক টঙ্গী পৌর সভার সাবেক মেয়র এডঃ আজমত উল্লা খান। গুটি কয়েক নেতার পরামর্শে চলা বর্তমান এমপি জাহিদ আহসান রাসেলের ওপর  নাঁখোশ  দলের বেশীর ভাগ ত্যাগী নেতা কর্মী। আগামী নির্বাচনে ঔক্য বদ্ধ ভাবে নেতা কর্মীরা কাজ না করলে  এই আসনের আওয়ামী  লীগ দলীয়  প্রার্থী ঝুঁকিতে পড়তে পারে।
শ্রীপুর ও সদরের অংশ নিয়ে গাজীপুর- ৩ আসন
গাজীপুর -৩ ( শ্রীপুর ও সদরের অংশ) আসনে বর্তমানে আছেন প্রবীন সংসদ সদস্য এডঃ রহমত আলী। দীর্ঘদিন যাবৎ তিনি এই আসনের এমপি। তাঁর প্রকাশ্য প্রতিদ্ব›দ্ধী জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শ্রীপুর উপজেলা  পরিষদের  চেয়ারম্যান  ইকবাল হোসেন সবুজ। এমপি   এডঃ রহমত আলীর পুত্র জামিল হাসান দূর্জয়ের  সর্ম্পকে এলাকায় রয়েছে নেতিবাচক কথাবার্তা। ৫ বার এই আসনের এমপি হওয়ার পরও তিনি নিজের নামে কোন প্রতিষ্ঠান করতে না পেরে ৪৫ বছরের পড়নো শ্রীপুর ডিগ্রী কলেজের নাম  রহমত আলী কলেজ করায় এলাকায় সমালোচিত ও নিন্দিত হয়েছে। বিপরীত দিকে বিএনপি’র মনোনয়নপ্রত্যাশীর তালিকা দীর্ঘ। শ্রীপুরে সাংগঠনিক ভাবে বিএনপি শক্তিশালী হলেও  জাদঁরেল নেতা নেই। এই আসনে বিএনপি’র মনোনয়ন পেতে মাঠে কাজ করছেন জেলা বিএনপি’র যুগ্ম সম্পাদক  সাবেক  ছাত্রনেতা সাখাওয়াত হোসেন সবুজ, ওলামা দলের কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি  পীরজাদা মাওলানা রুহুল আমীন, ¯ে^চ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় নেতা ডাঃ শফিকুল ইসলাম, শ্রীপুর উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি শাহজান ফকির ,রাজাবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান কুতুব উদ্দিন, ডাঃ রফিকুল ইসলাম বাচ্চু ও তরুণ ব্যারিষ্ঠার ফজলুল করিম জুয়ের।। সঠিক প্রর্থী দিতে পারলে বিএনপি এই আসনটি উদ্ধার করতে পারবে এমনটি মনে করেন দলের নেতা কর্মীরা।
গাজীপুর-৪ কাপাসিয়া আসন
গাজীপুর -৪(কাপাসিয়া) আসনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিতে দলীয় মনোনয়নে আভ্যতরীন প্রতিদ্ব›দ্ধী নেই। এই আসনে আওয়ামী লীগের বর্তমান এমপি সিমিন হোসেন রিমির মনোনয়ন অনেকটা চুড়ান্ত। অন্য দিকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদন্য সাবেকমন্ত্রী ব্রিগেঃ (অবঃ) আ স ম হান্নান শাহ ১৮ দলের জোটের একমাত্র প্রাথীৃ। কাপাসিয়া আওয়ামী লীগ কমিউনিষ্ঠের  হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে বলে মাঠে আলোচনা রয়েছে। বর্তমান থানা আওয়ামী লীগের কমিটি থেকে ত্যাগি ও পরীক্ষিত নেতারা বাদ পড়েছেন। ইউনিয়ন কমিটি করতে গিয়ে  এমপি সিমিন হোসেন রিমি বিভিন্ন স্থানে নেতা কর্মীদের তোপের মুখে পড়ছেন। দলীয় মনোনয়নে প্রতিদ্ব›দ্ধীতার মুখে না পড়লেও ভোটের মাঠে কঠোর বিরোধীতা সামলাতে হতে পাড়ে রিমিকে। বিগত ১৫ বছর চাচা ও ভাইয়ের এমপিত্ব কালে কাপাসিয়া ছিল উন্নয়ন বঞ্চিত। আর এমপি রিমির বিশ্বস্ত নেতা কর্মীদের  অপকর্মের কারনে  এলাকায় ব্যাপক সমালোচনাত রয়েছেই। আর বিপরীত শিবির বিএনপিতে হান্নান শাহ একক নেতা। তাঁর অবস্থান এলাকায় ও দলে সুসংহত। ৯১-৯৬ সালে হান্নান শাহ’র সময় কাপাসিয়ায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। ভোটের হিসাবে আওয়ামী লীগ-বিএনপি’র ব্যবধান একেবারেই কম। আগামী নির্বাচনে হান্নান শাহ প্রতি™¦›দ্ধীতা করলে জিতে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে এমন আলোচনা সাধারন মানুষের মুখে মুখে।
কালিগঞ্জ ও  সদরের অংশ নিয়ে গাজীপুর – ৫ আসন
গাজীপুর -৫ ( কালিগঞ্জ ও সদরের অংশ) আসনের  বর্তমান এমপি  মেহের আফরোজ চুমকী মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী। তিনি এই আসনে  আবারও  মনোনয়ন প্রত্যাশী। সাবেক এমপি ও জেলা পরিষদের  প্রশাসক  আখতারুজ্জামান  আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইবেন। এই দুই জনের মধ্যেই নৌকা পাওয়ার লড়াই হবে। অন্য দিকে বিএনপি’র  মনোনয়ন নিশ্চিত ফজলুল হক মিলনের । তিনি জেলা বিএনপি’র সভাপতি ও কেন্দ্রের সাংগঠনিক সম্পাদক।   মামলা হামলার শিকার কালিগঞ্জ বিএনপির নেতা কর্মীরা মনে করেন আগামী নির্বাচনে  এলাকাবাসী  ফজলুল হক মিলনকে ভোট দিয়ে নির্বাচীত করবেন।