Pages

Categories

Search

আজ- বুধবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টি ও শিক্ষাবিস্তারে ভূমিকা রাখছে গাজীপুর জেলা পরিষদ

মঞ্জুর হোসেন মিলন : শিক্ষিত বেকারদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আত্ম- কর্মসংস্থান সৃষ্টি, শিক্ষাবিস্তারে গরীব ও মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান, প্রতিবন্ধি, অন্ধ, পঙ্গু ও দু:স্থ্যদের সহায়তা, অসহায় ও হতদরিদ্রদের আর্থিক সহায়তা, শিক্ষা প্রসারে স্কুল, কলেজ, মসজিদ, মাদ্রাসা ও পাঠাগারের উন্নয়ন এবং জনস্বার্থে রাস্তাঘাট, ব্রীজ, কালর্ভাট ও পাবলিক টয়লেট নির্মাণ সহ সামাজিক উন্নয়নে কার্যকর ভূমিকা রাখছে গাজীপুর জেলা পরিষদ। এরই ধারাবাহিকতায় ডাকসু’র সাবেক ভিপি ও সাবেক এমপি বর্তমান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আখতারউজ্জামান ১৫ মে মঙ্গলবার জেলার ৪৭১ জন গরীব ও মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের হাতে শিক্ষাবৃত্তির চেক তুলে দেন।
জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (যুগ্ম সটিব) মো: মাহবুব আলমের সভাপতিত্বে শহরের বঙ্গতাজ অডিটরিয়ামে শিক্ষাবৃত্তি¡র চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চেয়ারম্যান আখতারউজ্জামান। বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে গাজীপুরের জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, জেলা পরিষদের সদস্যবৃন্দ, কর্মকর্তা, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ, প্রধান শিক্ষক, অভিভাবক মন্ডলী, রাজনৈতিক নেত্ববৃন্দ ও অতিথিদের উপস্থিতিতে বক্তারা জনবান্ধব কর্মকান্ডের ফিরিস্তি তুলে ধরেন। বক্তারা আরো বলেন, সকল কর্মকান্ডে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতায় আখতারউজ্জামানের নের্তৃত্বে জেলা পরিষদ জনকল্যানে উল্লেখযোগ্য কাজ করে স্থানিয় সরকারের জনবান্ধব প্রতিষ্ঠান হিসেবে জেলাবাসীর কাছে আস্থা অর্জন করেছে। অন্য বছরের ন্যায় ৪৭১ জন গরীব ও মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীকে শিক্ষাবৃত্তির ৩৯ লাখ টাকার চেক দেন।
আখতারউজ্জামান তাঁর বক্তৃতায় বলেন, বর্তমান সরকারের ডিজিটাল ভিশন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে গাজীপুর জেলা পরিষদ কম্পিউটার প্রশিক্ষণ ও আউট- সোর্সিং এ আত্ম কর্মসংস্থা কার্যক্রম চালু করেছে। দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে আটটি ট্রেডে প্রায় পাঁচ হাজার শিক্ষিত বেকারকে ফ্রি ট্রেনিং এর মাধ্যমে প্রশিক্ষিত করা হয়েছে। প্রশিক্ষণ নিয়ে অনেকে সরকারি- বেসরকারি চাকুরী করছেন। অনেক প্রশিক্ষিত যুবক – যুবতির গার্মেন্টস, ড্রাইভিং, বøক- বাটিক ও মৌ চাষ সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে স্বকর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।
১৬ মে বুধবার জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (যুগ্ম সটিব) মো: মাহবুব আলমের সাথে কথা হয় এ প্রতিবেদকের। তিনি জানান, জেলা পরিষদের নিজস্ব অর্থ এবং সরকারের কাছ থেকে প্রাপ্ত বরাদ্দ দিয়ে জেলার বিভিন্ন অঞ্চলে উন্নয়ন কাজ, জনকল্যাণমূলক এবং সামাজিক কর্মকান্ড পরিচালিত হচ্ছে। এছাড়া ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান, প্রতিবন্ধি, অন্ধ, পঙ্গু ও দু:স্থ্যদের সহায়তায় উপকরণ প্রদান, অসহায় ও হতদরিদ্রদের আর্থিক সহায়তা এবং শিক্ষা প্রসারে বৃত্তিপ্রদান করছে জেলা পরিষদ। মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধণা, জাতীয় ও ধর্মীয় সকল অনুষ্ঠান উদ্যাপন করে আসছে। চেয়ারম্যান আকতারউজ্জামানের নের্তৃত্বে এই জেলা পরিষদ সেবাদানকারী একটি প্রতিষ্ঠান।
কাপাসিয়া উপজেলার দূর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা পরিষদের ১০ নং সাধারন ওয়ার্ডের সদস্য আলহাজ্ব এম এ ওহাব খান খোকা বলেন, উন্নয়ন কর্মকান্ডে অর্থ বরাদ্দে কোনো রকম বৈষম্য নেই। আখতারউজ্জামানের দক্ষতা ও যোগ্য নের্তৃত্বে জেলার বিভিন্ন এলাকায় রাস্তাঘাট নির্মাণ/সংস্কার, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন, ডাকবাংলো ও টয়লেট নির্মাণ এবং শিক্ষিত বেকারদের আত্ম-কর্মসংস্থানে গাজীপুর জেলা পরিষদ গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা রাখছে। স্থানিয় সরকারের এই প্রতিষ্ঠানটি এখন জনবান্ধব।